• ঢাকা
  • |
  • শুক্রবার ৭ই আষাঢ় ১৪৩১ সকাল ০৮:২০:৫০ (21-Jun-2024)
  • - ৩৩° সে:

ঝালকাঠির সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে তীব্র ভাঙন; আতংকে মানুষ


বুধবার ২১শে সেপ্টেম্বর ২০২২ সকাল ১০:১৭



ঝালকাঠির সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে তীব্র ভাঙন; আতংকে মানুষ

ফাইল ছবি

বন্যায় সুগন্ধা ও বিষখালী নদীর পানি ওঠে ঝালকাঠির নিম্নাঞ্চলে কিছুদিন স্থায়ী হয়ে আবার নেমে যাওয়ায় মাটি নরম হয়ে শুরু হয়েছে তীব্র নদী ভাঙন। নদীর করাল গ্রাসে ইতোমধ্যেই বিলীন হয়েছে বসতঘর, ফসলী জমি, রাস্তাঘাট, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও দোকানপাট। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা।

গত আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসে কয়েকদফা বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসের কবলে পড়ে ঝালকাঠি জেলা। পানিতে তলিয়ে যায় ফসলের ক্ষেত ও বসতঘরসহ বিভিন্ন স্থাপনা। পাশপাশি টানা বৃষ্টিপাতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। পানি নামার সাথে সাথে সুগন্ধা ও বিষখালী নদীতে তীব্র ভাঙন দেখা দেয়। গত ১৫ দিনে নদীতে বিলিন হয়েছে নলছিটির বহরমপুর ও রাজাপুরের বাদুরতলা এলাকার ১০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। ৮০ বছর বয়সী বিধবা দুধমেগের বেগম। বিষখালির ভাঙনে ৪ বার ভেসে গেছে তার বসত ঘর এবং জমিও ৩ বার নদী গর্ভে চলে যাওয়ায় এখন স্বর্বশান্ত হয়ে অন্যের জমিতে খুপড়ি ঘর তুলে ভাঙনের মুখে একাই বসবাস করে আসছেন তিনি। বিষখালি দনীর পাড়ে এভাবে প্রায় অর্ধশত পরিবার রয়েছে যাদের দিন ও রাত কাটে আতংকে। তীব্র ভাঙনের মুখে ঝালকাঠি সদরের চরকাঠি, ভাটারাকান্দা, কৃষ্ণকাঠি, দেউরী, দিয়াকুল, নলছিটি উপজেলার বহরমপুর, ষাইটপাকিয়া, মল্লিকপুর, কাজিপাড়া, তিমিরকাঠি, হদুয়া ও রাজাপুরের মঠবাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, লঞ্চঘাট, বাদুরতলা, কাচারিবাড়ী বাজার, চল্লিশকাহনিয়া ও মানকি সুন্দর গ্রামের ফসলি জমি, বসতঘরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। নদী ভাঙ্গনের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় এসব এলাকায় জনমনে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। ভাঙনের মুখ রয়েছে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ, মাদ্রাসা ঈদগাসহ বিভিন্ন স্থাপনা। যেকোন সময় এসব এলাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নদী গর্ভে বিলীন হতে পারে।

লঘুচাপ ও নিম্নচাপে সৃষ্ট বন্যায় নদী ভাঙ্গন বৃদ্ধি পাওয়ার কথা স্বীকার করে ঝালকাঠি পানি উনয়ন্ন বোর্ড কতৃপক্ষ জানিয়েছেন জরুরী ভিত্তিতে কিছু এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে।

নদী ভাঙ্গন রোধে ইতোমধ্যে কয়েকটি প্রকল্পের প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলেই ভাঙ্গন রোধে কার্যক্রর পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

নদী ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা পেতে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ এবং স্থায়ী বেড়িবাঁধ নির্মানের দাবি জানিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত ও হুমকির মুখে থাকা বাসিন্দারা। 

মন্তব্য করুনঃ


সর্বশেষ সংবাদ