পাকিস্তানের  বিরুদ্ধে গর্জে ওঠা প্রয়েজন: নরেন্দ্র মোদি

নিজ দেশের আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ না করে বরং পাকিস্তানের  বিরুদ্ধে গর্জে ওঠা প্রয়েজন বিক্ষোভকারীদের, বৃহস্পতিবার কর্নাটকের একটি সভায় এমনটাই বললেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘ধর্মের ভিত্তিতে জন্ম হয়েছিল পাকিস্তান দেশটির, ধর্মের ভাগ হয়েছিল ভারত। হিন্দু, শিখ, খ্রিশ্চান, জৈন, পাকিস্তানে তাদের বিরুদ্ধে নৃশংসতা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে। হাজার হাজার মানুষ তাদের ঘর ছেড়ে শরণার্থী হিসেবে ভারতে আসতে বাধ্য হয়েছেন।’

তিনি আও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক স্তরে পাকিস্তানের মুখোশ খুলে দেওয়ার সময় এসেছে। যদি প্রতিবাদ, বিক্ষোভ করতেই হয়, তাহলে ৭০ বছরে পাকিস্তানের আচরণের বিরুদ্ধে করুন। যদি স্লোগান দিতে চান, তাহলে সেখানে সংখ্যালঘুদের সঙ্গে যে নৃশংস আচরণ হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে স্লোগান দিন, যদি সভা করতে চান, তাহলে দলিত এবং দরিদ্র, পাকিস্তান থেকে ভারতে আসা শরণার্থীদের সমর্থনে স্লোগান দিন।’

নাগরিকত্ব আইনে সমর্থন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়া ভারতের “সাংস্কৃতিক ও জাতীয় দায়িত্ব”

কংগ্রেস ও তার জোটসঙ্গীদের বিরুদ্ধে পাকিস্তান থেকে আসা সংখ্যালঘু শরণার্থীদের নিয়ে বিক্ষোভ করার অভিযোগ তোলেন প্রধানমন্ত্রী।
মোদি বলেন, ‘তারা (কংগ্রেস ও তার জোটসঙ্গী) ভেতরে ভেতরে আমাদের জন্য যে ঘৃণা রেখেছে। তারা ভারতের সংসদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছে।’

এর আগে দিল্লির সভায় বিরোধী দলগুলোর উদ্দেশ্যে মোদি বলেন, তিনি ফের ক্ষমতায় আসায় হতাশ তারা। এদিন তিনি বলেন, ‘এভাবে ভারতকে আন্তর্জাতিকস্তরে লজ্জায় ফেলার চক্রান্ত চলছে কেন? আমি বলতে চাই, আপনাদের যদি পছন্দ না হয়, তাহলে মোদিকে ঘৃণা করুন, হেনস্থা করুন।’