টনসিলের ব্যথা রোধে কার্যকর ঘরোয়া চিকিৎসা

অনেকেরই টনসিলে ব্যথার সমস্যা হয়। শিশু থেকে বড় মানুষ সবারই এ সমস্যা হতে পারে। সাধারণত টনসিলাইটিস বা টনসিলের প্রদাহের কারণেই এ ব্যথা হয়ে থাকে। অনেকের ক্ষেত্রে টনসিলাইটিন হলে অল্প জ্বর বা গা ব্যথা হতে পারে। টনসিল ফুলে গিয়ে লালও হয়ে যেতে পারে।বারবার এ রকম প্রদাহ হলে চিকিৎসকরা অনেক সময় অস্ত্রোপচারের পরামর্শ দেন। তবে প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যথা কমাতে কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা করা যেতে পারে। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক টনসিলে সংক্রামণের ফলে ব্যথা হলে তা নিরাময় করার কয়েকটি অব্যর্থ ঘরোয়া টোটকা সম্পর্কে-
১) লবণ পানি
গলা ব্যথা শুরু হলে যে কাজটি আমরা প্রায় সকলেই করে থাকি তা হল, সামান্য গরম পানিতে লবণ দিয়ে কুলকুচি করা। এটি টনসিলে সংক্রামণ রোধ করে ব্যথা কমাতে অত্যন্ত কার্যকরী। শুধু তাই নয়, উষ্ণ লবণ পানি দিয়ে কুলকুচি করলে গলায় ব্যাকটেরিয়ার সংক্রামণের আশঙ্কাও কমে যায়।
২) আদা চা
দেড় কাপ পানিতে এক চামচ আদা কুচি আর আন্দাজ মতো চা দিয়ে ১০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। দিনে অন্তত ২-৩ বার এটি পান করুন। আদার অ্যান্টি ব্যকটেরিয়াল, অ্যান্টি ইনফালামেন্টরী উপাদান সংক্রামণ ছাড়াতে বাধা দেয়। এর সঙ্গে সঙ্গে গলার ব্যথা কমিয়ে দিতেও এটি অত্যন্ত কার্যকরী।
৩) লেবুর রস
২০০ মিলিগ্রাম উষ্ণ পানিতে এক চামচ পাতিলেবুর রস, এক চামচ মধু, আধা চামচ লবণ ভাল করে মিশিয়ে নিন। যত দিন গলা ব্যথা ভাল না হয়, তত দিন পর্যন্ত এই মিশ্রণটি সেবন করুন। টনসিলের সম্যসা দূর করার জন্য এটি অত্যন্ত কার্যকরী।
৪) পুদিনা
পুদিনা খুব চমৎকার ঘরোয়া উপাদান টনসিলাইটিস সারানোর ক্ষেত্রে। পুদিনার মধ্যে থাকা মেনথল (Menthol)গলা ব্যথাকে প্রশমিত করে। টনসিলের ব্যথা কমাতে দিনে কয়েকবার পুদিনার চা খেতে পারেন।
৫)দারুচিনি
দারুচিনির মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিমায়োবিয়াল উপাদান। এটি দ্রুত টনসিলের ব্যথা রোধে কার্যকর। এটি ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধ করে এবং প্রদাহ দূর করে। সামান্য দারুচিনির গুঁড়া ও এক চা চামচ মধু এক গ্লাস গরম পানিতে মেশান। টনসিলে ব্যথার সময় এটি খেতে পারেন।
৬)হলুদ
হলুে দর মধ্যে রয়েছে অনেক গুণ। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিসেপটিক উপাদান টনসিলের ব্যথা সহজে দূর করতে সাহায্য করে। এক গ্লাস গরম পানিতে এক চা চামচ হলুদ গুঁড়া মেশান। এই পানীয় দিয়ে গারগেল করলে টনসিলে ব্যথা থেকে রেহাই পাওয়া যাবে।
এ ছাড়া এই সময়ে তরল খাবার বেশি করে খান এবং ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ খাবার খান।
পাশাপাশি গরম পানিতে মধু ও লেবু মিশিয়ে খেতে পারেন।