গণতন্ত্র ধ্বংস করে যারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় বসে তারাই দেশকে অস্থিতিশীল করে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (০৪ মার্চ) গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি ‘বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ’, এনএসটি ফেলোশিপ এবং গবেষণা-অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে সুরক্ষা দিতেই একবছর ধরে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে- এ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভ্যাকসিন দেওয়া শেষ হলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে।

শিক্ষাকে সবসময় গুরুত্ব দিয়ে দেখেছে আওয়ামী লীগ সরকার, অতীতে শিক্ষাখাতে বিজ্ঞানে উৎসাহ ছিল না শিক্ষার্থীদের,

তবে বিজ্ঞান ও গবেষণা ছাড়া কোনো জাতি এগিয়ে যেতে পারে না। তাই জ্ঞান ও দক্ষতা বাড়াতে আধুনিক শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেছে সরকার।

তিনি বলেন, দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তুলতে শিক্ষাখাত নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে আর শিক্ষাকে বহুমুখী করে দেওয়া হচ্ছে।

শেখ  হাসিনা বলেন, পাবনার রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পাশাপাশি দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আরো একটি পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের সব বিভাগে একটি করে নভোথিয়েটার নির্মাণ করা হবে,

আর বিজ্ঞান ও গবেষণার মাধ্যমে যাতে মানবকল্যাণ নিশ্চিত করা যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে দেশের গবেষকদের।

শিল্প কলকারখানায় গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগকে কার্যকর করতে হবে এ কথা উল্লেখে করে তিনি বলেন,

সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে কাজ করা হয়েছে বলেই, দেশ আজ স্বল্পোন্নত কাতার থেকে উন্নয়নশীল স্তরে উন্নীত হতে পেরেছে।

উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবেই। করোনা যেহেতু থামাতে পারেনি আশা করি, বাংলাদেশকে কেউই থামিয়ে রাখতে পারবে না।