হিলিতে ফ্যাক আইডির ছড়াছড়ি মান নিয়ে টানাটানি

লুৎফর রহমান, হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দীর্ঘদিন যাবৎ দিনাজপুরের হিলিতে কে বা কারা বিভিন্ন নামে-বেনামে ফেসবুকে ফ্যাক আইডি খুলে সম্মানিদের সম্মান নিয়ে টানা হেছড়া করছে। এই আইডিগুলো দিনের পর দিন ব্যক্তি সমাজের বিরুদ্ধে অপপ্রচার, মিথ্যা ও আপত্তিকর ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে যাচ্ছে।

ভুক্তভোগিরা একাধিকবার প্রশাসনের নিকট অভিযোগ করলেও তার কোন সুরাহা পায়নি। অনুসন্ধানে দেখা যায়, তামাক পাতা, হিলির গোপন খবর, সত্য বচন, হিলি বিরামপুর নবাবগঞ্জ ঘোড়াঘাট, আওয়ামীলীগ বনাম বিএনপি, চুড়িপট্টি মোড়, চুড়িপট্টীর সন্তান ও চুড়িপট্টির সুমন আইডিগুলো বেশ কিছু দিন ধরে ফেসবুকে মানিদের মান নিয়ে অপপ্রচার, আপত্তিকর ও মিথ্যা গুজব পোস্ট করে আসছে। এই ফ্যাক আইডিগুলোকে নিয়ে হিলির অনেকের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। দেখা যায় ঐআইডিগুলো ফেসবুকে অনেককেই রিকোয়েস্ট পাঠাচ্ছে। আর সুযোগ পেলেই  বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।

সাংবাদিকসহ বিভিন্ন জনের পোস্টে ভয় ভীতিকর কমেন্ট লিখছে। ভুক্তোভুগী হাকিমপুর (হিলি) উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পারুল নাহার বলেন, হিলি বিরামপুর ঘোড়াঘাট নবাবগঞ্জ ও আওয়ামীলীগ বনাম বিএনপি সহ কয়েকটি ফ্যাক আইডি আমার নামে মিথ্যা অপপ্রচার ও মানহানিকর কথা তাদের আইডিতে পোস্ট করেছে। আমি থানায় এ বিষয়ে অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কোন সুরাহা পাইনি। শেষে সার্ভার ক্রাইমেও অভিযোগ দিয়েছিলাম। ভুক্তোভুগী রনি খান জানান, তামাক পাতা নামের এই আইডিটি বেশকিছু দিন আগে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার ফেসবুকে পোস্ট করে ছিলো।

এ বিষয়ে আমি হাকিমপুর থানায় একটা অভিযোগ দায়ের কলেছিলাম। কিন্তু এ যাবৎ আমি কোন ফল পাইনি। প্রতিনিয়ত ফেসবুকে এই ফ্যাক আইডিগুলোকে নিয়ে আতঙ্কে থাকি। ভুক্তোভুগি লুৎফর রহমান বলেন, সুমন নামের আইডিটি আমার ছবি দিয়ে ফেসবুকে আমার বিরুদ্ধে আপত্তিকর লিখালিখি অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। থানায় অভিযোগ দেওয়ার পরও কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। সুমন প্রকাশ্যে ঘুরে বেরাচ্ছে। এ বিষয়ে হাকিমপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম মোস্তাফিজুর রহমান মিলন বলেন, হিলিতে কিছু ফ্যাক আইডি আছে তারা দীর্ঘদিন ধরে অনেকের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার ফেসবুকে লিখে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে অনেকেই থানা অভিযোগ দিয়েছে। আমি পুলিশ প্রশাসনকে এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। হাকিমপুর (হিলি) পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত জানান, ফ্যাক আইডিগুলো যেভাবে হিলির বিভিন্ন জনের বিরুদ্ধে আপত্তিকর, মিথ্যা গুজব ফেসবুকে লিখছে তা দু:খ জনক। যারা এর ভুক্তোভুগী তারা তথ্য প্রযুক্তি আইনে থানায় অভিযোগ বা মামলা দায়ের করুক। আমি প্রশাসনের জোড়ালো পদক্ষেপ কামনা করছি।

হাকিমপুর থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রাজ্জাক আকন্দ জানান, হিলির বেশ কয়েকটি ফ্যাক আইডির বিরুদ্ধে আমাদের নিকট অভিযোগ আসছে। আদালতে অভিযোগগুলো পাঠিয়ে আবেদন করেছি। আদালত অনুমতি দিলে আমরা পদক্ষেপ গ্রহন করবো। এই ফ্যাক আইডিদের বিরুদ্ধে আমাদের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। এ বিষয়ে হাকিমপুর (হিলি) উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুর রাফিউল আলম জানান, এ বিষয়ে কেউ আমাকে অভিযোগ করেনি। তবে যদি কেউ ফ্যাক আইডির শিকার হয়ে থাকে তাহলে তারা সার্ভার ক্রাইমে মামলা করতে পারে এবং ভুক্তোভুগীরা থানায় মামলা বা অভিযোগ দায়ের করবে।