হালুয়াঘাট স্থল বন্দর উন্নয়নের কাজে স্থবিরতা-যেন নজর দারির কেউ নেই

এম.এ মালেক, হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : হালুয়াঘাট উপজেলার গোবরাকুড়া কড়াইতলী স্থলবন্দর উন্নয়ন ও আধুনিকরনে ৬৭ কোটি ২২ লাখ ৬২ হাজার টাকা ব্যায় সাপেক্ষে নির্মাণ কাজ শুরু হলেও দীর্ঘ এক বছরেও দৃশ্যমান উন্নয়ন তেমন চোখে পড়ছেনা। ৪ টি ঠিকাদার নির্মাণ প্রতিষ্ঠান জমি অধিগ্রহণে বিলম্ব ও করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারনে আরও এক বছর প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধির সুপারিশ করেছেন।

সরেজমিন তদন্তে জানা যায়,প্রকল্পের কার্যক্রমে বন্দরের জমি অধিগ্রহণ, ব্যারাক ডরমেটরী, ওয়্যার হাউজ, ওপেন স্ট্যাক ইয়ার,ওয়েট ব্রীজ, ট্রান্সস্পিমেন্ট ইয়ার্ড সহ অন্যান্য কাজ হওয়ার কথা রয়েছে। উন্নয়ন কাজে গতি-মন্থর স্থবিরতা ছাড়া বর্তমান সময়ে বন্দর এলাকায় আর কোন কিছু দৃশ্যমান নয়। শুধুমাত্র মাটি ভরাট ও প্রাচীর নির্মাণ এর টুকি টাকি কাজ চলমান।সম্প্রতি নৌ পরিবহন মন্ত্রানালয় সম্পকিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে ঠিকাদারদের কাজ নিয়ে স্থলবন্দর এলাকার স্থানীয় এমপিদের তোলা অভিযোগ নিয়ে আলোচনা হয় এবং। স্থলবন্দর এলাকা গুলোতে উন্নয়ন কাজে দ্রুত গতি ফেরানোর সিদ্ধান্ত হয়।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জাহাঙ্গীর ব্রার্দাস,ডি,জে বাংলা জানান,আমরা সরকারের কাছে সময় বৃদ্ধির বিষয়টি জানিয়েছি আশাকরি মনজুর হবে এবং দ্রত কাজে গতি ফিরে আসবে। বন্দর প্রৌকশলী মোর্শেদ আলম জানান, স্থল বন্দরের কাজে স্থবিরতা কাটাতে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আশাকরি স্থবিরতা থাকবেনা।

জানতে চাইলে স্থানীয় এম,পি জুয়েল আরেং এ প্রতিবেদককে জানান, স্থলবন্দরের সার্বিক উন্নয়নে দ্রুত গতি ফেরানোর জন্য সরকারের সর্বচ্চো ফোরামে আলোচনা হয়েছে। শ্রীঘ্রই সিদ্ধান্ত আসবে।

আমদানীকারক ব্যবসায়ী ও এলাকা বাসী জানান, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন উন্নয়ন কাজের স্থবিরতা কাটিয়ে আগামী শীত মৌসুমে ব্যবসা শুরুর আগে বন্দরের অধিকাংশ কাজ শেষ করতে পারে এমনটাই প্রত্যাশা তাদের।