হালুয়াঘাটে খাদ্য নিয়ন্ত্রক অনিয়ম ও রাইসমিল মালিকদের বঞ্চিত করায় সংবাদ সন্মেলন

এম এ মালেক, হালুয়াঘাট প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে বোর মৌসুমে সরকারী ভাবে খাদ্য গুদামে ধান সংগ্রহে এবং উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্তৃক অনিয়ম ও রাইসমিল মালিকদের বঞ্চিত করায় সংবাদ সন্মেলন করেছে উপজেলা রাইসমিল মালিক সমিতি।
আজ বুধবার বিকেলে ধারা বাজার মেসার্স জুয়েল রাইচ মিলের সামনে সংবাদ সম্মেলন বলেন, ৩৯ টি চাল কলের মধ্যে ৩৬ টি সুবিধা থেকে বঞ্চিত , ২০১৯ অর্থ বছরে যে পরিমাণ পাক্ষিক মিলিংক্ষমতা দেওয়া হয়েছিল ২০২০ অর্থ বছরে তা থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এ বছর মোট বরাদ্দ ৩ হাজার ৩ শত ১৭ মে.টনের মধ্যে হালুয়াঘাট উপজেলা ও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তাগনের যোগসাজসে মেসার্স শাকিল অটো রাইস মিলকে ১ হাজার মে.টন, মেসার্স মাহিন অটো রাইস মিলকে ১ হাজার মে.টন ও মেসার্স সাথী অটো রাইস মিলকে ৯৫০ মে.টন চাল সংগ্রহে বরাদ্দ দেওয়া হয়।
তাদের অভিযোগ চাতাল ও সেমি অটো মিলগুলোর কেপাসিটি অনুযায়ী বরাদ্দ না দিয়ে তাদের মনগড়া ৩টি ডায়াল মিলকে বরাদ্দ দেয়। এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হলে বিভিন্ন ব্যাংকে ঋন খেলাপী সহ আর্থীকভাবে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন। সংবাদ সম্মেলন এ সময় উপস্থিত ছিলেন মিল মালিক সমিতির সভাপতি মোঃ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, সহ সভাপতি আওলাদ হোসেন ও নবী হোসেন সহ অন্যান্যরা। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে শুনান সমিতির সহ সভাপতি আওলাদ হোসেন।