হাইমচরে প্রশাসনের কঠোরতা থাকলেও বাজারগুলোতে কমছেনা মানুষের উপস্থিতি

 মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: দেশের চলমান পরিস্থিতিতে মহামারী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আবারো তৎপর হয়ে উঠেছেন চাঁদপুর হাইমচর উপজেলা প্রশাসন। গত কয়েকদিন থেকে হঠাৎ করে উপজেলার প্রাণকেন্দ্র আলগী বাজারে যানবাহন ও মানুষের উপস্থিতি বেড়ে যায়। ফলে উপজেলা প্রশাসন ও সেচ্চাসেবক টীমের তৎপরতা পূর্বের তুলনায় বেশি। প্রশাসন যতই কঠোর হোক না কেনো প্রতিনিয়ত বাজারে কমবেশি যানবাহন ও মানুষের উপস্থিতি লক্ষা করা গেছে। যার কারনে জেলা প্রশাসক কর্তৃক ঘোষিত লকডাউনে মানুষজনকে নিয়ন্ত্রনে রাখতে প্রশাসন যেনো অনেকটা ব্যর্থ। হঠাৎ করে আজ চাঁদপুরে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় আবারো কঠোর অবস্থানে রয়েছে হাইমচর উপজেলা প্রশাসন।
এজন্য ১৩ মে বুধবার ৪র্থ দিনে উপজেলার ভিঙ্গুলিয়া থেকে জালিয়ার চর পর্যন্ত বিভিন্নস্থানে মোবাইল কোট পরিচালনা করেছেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মেজবাউল আলম ভূইয়া। এসময় তিনি বলেন- করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে লকডাউন বাস্তবায়ন, সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত ও বাজার মনিটরিং এ আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। জনগণ সচেতন হলেই হাইমচরকে করোনামুক্ত রাখা সম্ভব হবে।
বুধবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের কার্যালয় থেকে শুরু করে আলগী বাজার, রায়ের বাজার, গাজীর বাজার, মহজমপুর, উত্তর আলগী, নয়ানী, কমলাপুর সহ পার্শ্ববর্তী গ্রাম সমূহে সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত, লকডাউন বাস্তবায়ন, বাজার মনিটরিং ও সরকারি নির্দেশনা অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, হাইমচর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মেজবাউল আলম ভূইয়া, আমার বাড়ি আমার খামার হাইমচর উপজেলা সমন্বয়কারী মোঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল সহ সেনাবাহিনীর সদস্যবৃন্দ। এদিকে লকডাউনে প্রশাসন ও সেচ্চাসেবক টীম যতই কঠোর অবস্থান গ্রহন করছেন না কেনো, সরজমিনে দেখা গেছে প্রশাসনের এমন কঠোর অবস্থানকে উপেক্ষা করে বিনা কারনে বাহিরে বের হচ্ছেন শত শত মানুষ। বাজারের ব্যবসায়ীগন প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অর্ধ আকারে খোলা রেখে ব্যবসা পরিচালনা করছেন।