হাইভোল্টেজ ম্যাচে জয় তুলে শীর্ষস্থান ধরে রাখলো লিভারপুল

বক্সিং ডে’ তে হাইভোল্টেজ ম্যাচে বড় জয় তুলে শীর্ষস্থান ধরে রাখলো লিভারপুল। পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে থাকা কে তাদের মাঠে ৪-০ ব্যাবধানে হারালো অলরেডরা। অন্য ম্যাচে, পিছিয়ে থেকেও জয় পেয়েছে আরেক ঐতিহ্যবাহী ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। অ্যান্থোনি মার্শিয়ালের জোড়া গোলে নিউক্যাসেলকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে রেড ডেভিলরা। তবে, ঘরের মাঠে লজ্জা পেয়েছে চেলসি। সাউদাম্পটনের সঙ্গে ২-০ গোলে হেরেছে ব্লুরা।

বক্সিং ডে’তে মুখোমুখি টেবিলের এক ও দুই নম্বর দল। ক্রিসমাসের আনন্দের রেশ বাড়াতে এমন একটা ম্যাচ উপভোগে উন্মুখ গোটা বিশ্ব। লেস্টারসিটির মাঠে অতিথি উড়তে থাকা লিভারপুল।

সময়ের সেরা দুই দাবিদারের ম্যাচে শুরু থেকেই স্বাগতিকদের চেপে ধরে লিভারপুল। ৩১ মিনিটে ট্রেন্ট আলেকজান্ডারের-আরনল্ডের পাস থেকে লেস্টারের জালে বল পাঠান ফিরমিনো।

বিরতির পর ৭১ মিনিটে টানা নয় ম্যাচ না হারা লিভারপুল পেনাল্টি পায় । দুই মিনিট পর নিজের দ্বিতীয় গোল করেন রবার্তো ফিরমিনো।

ম্যাচে দুই নম্বর দলের সঙ্গে যোজন যোজন দূর ব্যবধানে এগিয়ে থাকা লিভারপুল নিজেদের চেনায় ৭৮ মিনিটে। চেম্বারলেইনের পা থেকে চতুর্থ গোলে জয় নিশ্চিত করে। তাতে লিগে রেকর্ড টানা ৩৫ ম্যাচ অপরাজিত রেকর্ড গড়েই মাঠ ছাড়লো অলরেডরা।

আরেক বিগ ম্যাচে ওল্ড ট্রাফোর্ডে মুখোমুখি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও নিউক্যাসেল। পয়েন্টের টেবিলে সমতা থাকায় লাল দূর্গে চোখ রাঙ্গাচ্ছিল নিউক্যাসল।

ম্যাচের ১৭ মিনিটে এগিয়ে যায় রেড ডেভিলরা। ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড জোয়েলিংটনের কাছ থেকে বল পেয়ে গোল করেন ইংলিশ মিডফিল্ডার ম্যাথু লংস্টাফ। ওল্ড ট্রাফোর্ডে অতিথিদের লিড।

টানা ১৪ ম্যাচ গোল বার অরক্ষিত রাখা রেড ডেভিলরা যেনো এরপর ঘুম ভাঙ্গে। ২৪ মিনিটে আন্দ্রেয়াস পেরেইরার কাছ থেকে বল পেয়ে জাল খুঁজে নেন ফরাসি ফরোয়ার্ড অ্যান্থোনি মার্সিয়াল।

৩৫ মিনিটে প্রতিপক্ষের দারুণভাবে কাজে লাগান গ্রিনউড। নিউক্যাসল ডিফেন্ডারের কাছ থেকে বল পেয়ে বুলেট গতির শটে জাল খুঁজে নেন।

ছয় মিনিট পর ব্যবধান বাড়ান র‌্যাশফোর্ড। ৩-১ গোলের লিড নিয়ে মাঠ ছাড়েন ওলে গানার সোলশায়ার শিষ্যরা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আবারো গোল উপহার দেয় নিউক্যাসেল। ৫১ মিনিটে শন লংস্টাফের দুর্বল ব্যাকপাস আয়ত্তে এনে রেড ডেভিলদের ৪-১ গোলের বড় জয় উপহার দেন মার্সিয়াল। এই ফ্রেঞ্চ ফরোয়ার্ডের সুযোগ ছিল ২০১৩ এর পর লিগে কোনো রেড ডেভিলদের হয়ে হ্যাটট্রিক করার।

স্ট্যাম্পফোর্ড ব্রিজে চেলসির অঘটনের রাত। ঘরের মাঠে ব্লুদের প্রতিপক্ষ সাউদাম্পটন।

ম্যাচের শুরু থেকেই স্বাগতিকদের পরিকল্পনায় বাম হাত দিতে সফল ছিল সাউথ্যাম্পটন। ৩১তম মিনিটে সফরকারীদের এগিয়ে নেন আইরিশ ফুটবলার মাইকেল ওবাফেমি।

দ্বিতীয়ার্ধেও বল দখলে আধিপত্য ধরে রাখে ব্লুরা। কিন্তু কোথায় যেন একটা ঘাটতি ছিল। এলোমেলো ফুটবলের মাসুল গুনতে হয় ৭৩ মিনিটে। দলীয় প্রচেস্টায় লিড দ্বিগুন করে সাউদাম্পটনের জয় নিশ্চিত করেন নাথান রেডমন্ড। ঘরের মাটিতে এমন হারেও অবশ্য পয়েন্ট টেবিলের চারে আছে চেলসি।