হবিগঞ্জে বানিয়াচংয়ে রাতের আধারে পুকুরে বিষ প্রয়োগ দশ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন

সুশীল চন্দ্র দাস, হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে পুকুরে রাতের অন্ধকারে বিষ প্রয়োগ করে প্রায় দশ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৩ সেপ্টেম্বর রাতের কোনো এক সময়। বানিয়াচং সদরের ১ নং উত্তর পূর্ব ইউনিয়নের সুন্দর পুর গ্রামের পাশ্ববর্তী পুকুরে।

ফিসারীর মালিক ফারুক মিয়া জানান মজলিশপুর গ্রামের ফজলু মিয়া তার সঙ্গীয়দের নিয়ে আমার পুকুরে বিষ প্রয়োগ করেছে। প্রায় দশ লক্ষ টাকার মাছ নষ্ট করে দিয়েছে। আমি এই পুকুরের মালিক সাবেক চেয়ারম্যান হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়াকে অবগত করেছি এবং তিনি সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন।

এদিকে ফিশারীর অংশীদার ও পাহাড়াদার ১৪ সেপ্টেম্বর সকালে স্থানীয় আদর্শ বাজারে এসে ছান্দের মুরুব্বিয়ানদের বিষয়টি অবগত করার সময় অঝোরে থাকে কাঁদতে দেখা যায়। সে ও অনুরূপ ভাবে ফজলু মিয়া বিষ প্রয়োগ করেছে বলে অভিযোগ করেন।

এমনহীন ঘটনার খবর শুনে এলাকার মুরুব্বিয়ান ও সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় পুকুরের বেশিরভাগ মাছই মরে পানিতে ভেসে উঠেছে।যাহা পচে নষ্ট হয়নি তাহা বিভিন্ন হাট বাজারে ট্রলি যোগে বিক্রীর জন্য পাঠানো হয়েছে।এসময় ফারুক মিয়াকে নির্বাক দৃ‌ষ্টিতে চেয়ে থাকতে দেখা যায় এবং কান্না জড়িত কন্ঠে তার অভিযোগ তুলে ধরেন।

তিনি এমন ন্যাক্কারজ্বনক ঘটনাকারীর শাস্তি দাবি করেন। উল্লেখ্য পুকুরের পাশে পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি খাল রয়েছে মাছ আহরণের জন্য যাহা ফজলু মিয়া মজলিশপুর ছান্দের কাছ থে‌কে কিছুদিন পূর্বে লীজ নেন। ওই জায়গায় আশিক মিয়া জাল দিয়ে প্রতিনিয়তই মাছ মেরে নিয়ে যায়।

বাধা দিলে আশিক তাকে উচ্চ বাচ্য কথা বার্তা বলে এ বিষয়টিও ছান্দের বিশিষ্ট মুরুব্বীদের তিনি অবগত করেন।অনেকেই ধারণা করছেন এরই রেশ ধরে আক্রোশের বশুবতী হয়ে অত্র পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে মাছ নিধন করা হয়েছে।