হত্যা মামলা: জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটের চেয়ারম্যান ও স্ত্রী আটক

আরিফুজ্জামান,নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: হত্যা মামলার পলাতক আসামী ও অবৈধ সংস্থা জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটের চেয়ারম্যান জিয়াউল আমিন এবং তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানের অর্থ সচিব দৌলেতুন নেছাকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। বুধবার রাতে ঢাকার মোহাম্মদপুর হাউজিং সোসাইটির একটি বাড়ী থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বাড়ী বরগুনা জেলার পাথরঘাটা থানার কালোমেঘ গ্রামে।

র‌্যাব জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃতরা জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটের নাম ব্যবহার করে প্রতারনা, অপহরন করে মুক্তিপন আদায়, বেকার যুবকদের চাকুরীর প্রলোভন দিয়ে অর্থ আদায়, চাঁদাবাজি, ডাকাতি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জে আদমজীনগরে র‌্যাব-১১ এর কার্যালয়ে প্রেস কনফারেন্সে সিনিয়র সহকারী পরিচালক আলেপউদ্দিন জানান, ২০০৭ সালে বরগুনার চাঞ্চল্যকর দেবরঞ্জন কির্ত্তনীয়া হত্যা মামলার পলাতক আসামী হারুন অর রশীদ পালিয়ে এসে ঢাকায় অবস্থান নিয়ে নিজের নাম পরিবর্তন করে জিয়াউল আমিন নাম ধারন করে।

পরবর্তিতে তিনি ২০১১সালে জাতীয় মানবাধিকার ইউনিট নামে একটি এনজিওর কার্যক্রম শুরু করে নিজেকে সংস্থাটির চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে প্রতারনার কাজে জড়িয়ে পড়েন। তারা দেশের বিভিন্ন স্থানে অবৈধ এই সংস্থাটির ৪০টি কমিটি তৈরী করে ২ হাজার কর্মী নিয়োগ দেয়। যাদের কাছ থেকে তিন থেকে দশ হাজার টাকা পর্যন্ত সদস্য ফি আদায় করে।

গ্রেফতারকৃত জিয়াউল আমিনের বাসা থেকে র‌্যাবের অভিযানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের ৪২টি সীল, একটি লোহার চাকু ও বাঁশের লাঠি উদ্ধার করেছে।