সৈয়দপুরে কম্বল বিতরণ করে নির্বাচন প্রভাবিত করার চেষ্টা, কার্যক্রম স্থগিত করলো প্রশাসন

সাদিকুল ইসলাম সাদিক, নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর প্রথম শ্রেনীর সৈয়দপুর পৌরসভার একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর হয়ে কম্বল বিতরণের অভিযোগে ঢাকা আহসানিয়া মিশনের কার্যক্রম স্থগিত করেছে প্রশাসন। ৬ জানুয়ারী বুধবার বিকালে শহরের বাঁশবাড়ী সাদরা লেন এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

নির্বাচনী এলাকায় কোন প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণার অংশ বা ভোটারদের প্রভাবিত করার লক্ষ্যে বেসরকারী বা সরকারী কোন ত্রাণ সহায়তা চালানো আইনগতভাবে অবৈধ হওয়ায় এমনটা করা হয়েছে। জানা যায়, ঢাকা আহসানিয়া মিশনের স্কুল শিক্ষিকা কয়েকজন স্থানীয় ১৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর সৈয়দ মঞ্জুর আলমের নির্বাচনী কর্মী হিসেবে কম্বল বিতরণ করছিল।

এমতাবস্থায় একই ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বি কাউন্সিলর প্রার্থী সরকার মোঃ কবির উদ্দিন ইউনুস প্রচারণা চালায় যে, ওই শিক্ষিকারা সৈয়দ মঞ্জুর আলমের পক্ষে ভোটারদের প্রভাবিত করতে কম্বল দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছে। এখবর পেয়ে অন্যান্য প্রার্থীরা ও তাদের সমর্থকরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কম্বল বিতরণকারী শিক্ষিকা ও ঢাকা আহসানিয়া মিশনের ২ জন ফিল্ড সুপারভাইজারকে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বাচনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রমিজ আলম ঘটনাস্থলে পুলিশসহ উপস্থিত হন।

এসময় সুপারভাইজার বিশু মোল্লা জানান, তারা কোন প্রার্থীর পক্ষে কম্বল বিতরণ করছেন না। বরং তাদের সংস্থা কর্তৃক পরিচালিত স্কুলের অতিদরিদ্র শিক্ষার্থীদের কম্বল প্রদান করছেন। ইতোপূর্বেও তারা প্রশাসনের উপস্থিতিতেই সৈয়দপুরের বিভিন্ন এলাকায় কম্বল ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন। তারই অংশ হিসেবে আজ এই এলাকায় বিতরণ করা হচ্ছিল। কিন্তু তারা কেউই তাদের নিয়োগ সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেনি।

একারণে তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে সংস্থার সুপাইভাইজার ও শিক্ষিকা পরিচয়দানকারীদের কাছ থেকে একটি অঙ্গিকারনামা নিয়ে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রমিজ আলম তাদের নির্বাচন চলাকালীন কম্বল বিতরণ কার্যক্রম স্থগিত করেন। এ ব্যাপারে সংস্থাটির ফিল্ড ম্যানেজার আব্দুল করিম জানান,

আমরা যদি জানতাম আমাদের শিক্ষিকারা সৈয়দ মঞ্জুর আলমের কর্মী হিসেবে কাজ করছেন তাহলে তাদেরকে কম্বল বিতরণের দায়িত্ব দিতামনা। নিয়োগ এখনও চুড়ান্ত হয়নি। তাই নিয়োগপত্র দেয়া হয়নি। করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রয়েছে। ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও চলমান নির্বাচনের প্রার্থী সৈয়দ মঞ্জুর আলম বলেন, এটা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার। প্রতিপক্ষ প্রার্থীরা নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত হয়ে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

আমি ভোটারদের ভোটে নির্বাচিত কাউন্সিলর। আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে ভোটাররাই আমাকে ভোট দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবে ইনশা আল্লাহ। সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রমিজ আলম জানান, নির্বাচন চলাকালে ঢাকা আহসানিয়া মিশনের কম্বল বিতরণ কার্যক্রম সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বাচনী এলাকায় স্থগিত করা হয়েছে। এসংক্রান্ত অঙ্গিকারনামা প্রদান করেছেন সংস্থাটির কর্মকর্তা ও শিক্ষিকাবৃন্দ