সীমিত পরিসরে পর্যটন স্পট খুলে দেয়ার আহ্বান

করোনায় প্রতিদিন বড় অঙ্কের লোকসান গুনছে সিলেটের পর্যটনখাত। সংশ্লিষ্টদের এমনটাই দাবি। সংকট কাটাতে তাই প্রনোদনার পাশাপাশি পর্যটকদের জন্য সীমিত পরিসরে স্পটগুলো খুলে দিতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান ব্যবসায়ীদের।

প্রকৃতিকন্যা সিলেটের অর্থনীতির বড় অংশ পর্যটন শিল্পের ওপর নির্ভরশীল। ‘শ্রীভূমি’ খ্যাত এ অঞ্চলে রয়েছে জাফলং, রাতারগুল সোয়াম্প ফরেষ্ট, লালাখাল, বিছনাকান্দির মতো আকর্ষণীয় পর্যটন স্পট। এছাড়া চায়ের দেশ হিসেবে ভ্রমণপিপাসুদের কাছে সিলেটের আবেদন অন্যরকম।

তবে, অন্য সবকিছুর মতোই করোনার থাবায় বিপর্যস্ত পর্যটন শিল্পও। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন পর্যটনজীবীরা। কাজ হারিয়েছেন হাজারো হোটেল-মোটেল ও পরিবহন শ্রমিক। এ অবস্থায় টিকে থাকতে, সীমিত পরিসরে পর্যটন স্পষ্টগুলো পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়ার দাবি সংশ্লিষ্টদের।

সিলেটের হোটেল রেস্টহাউজ ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নওশাদ আল মোক্তাদির বলেন, “যেহেতু পরিস্থিতি একটু উন্নতির দিকে, কিছু নিয়মনীতি করে যদি পর্যটন স্পটগুলো খুলে দেয়া হয় তাহলে আমি মনে করি এটা সবার জন্য ভালোর দিকেই যাবে।”

চেম্বার নেতারা জানালেন, চলতি মৌসুমে মাসে লোকসান হয়েছে প্রায় শতকোটি টাকার। দি সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি এটিএম শোয়েব বলেন,

“মাসে প্রায় নব্বই কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে। এই তিন মাসে প্রায় ৩শ’ কোটি টাকার ক্ষতি। তাই প্রনোদনার টাকা যদি তারা পায়, তবে একটু হলেও স্বস্তিতে থাকবে তারা।”

সিলেটের নগরপিতা আরিফুল হক চৌধুরী বললেন, ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি জানান, সরকারের পক্ষ থেকে যেটুকু অর্থ দেয়া হয়েছে তার মধ্য থেকেই একটা কিছু করার চেষ্টা করা হচ্ছে।