সিলেট দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজার ইউনিয়নে বয়স্ক, বিধবা প্রতিবন্ধী ভাতার নতুন বই বিতরণ।

 এনাম রহমান, সিলেট প্রতিনিধি: সিলেট ৩ আসনের সংসদ সদস্য শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় থাকলে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মুক্তিযােদ্ধা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিচক্ষণতা চিন্তা ও চেতনার কারনে দেশের মানুষ আজ অনেক উন্নতি হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর মূল লক্ষ্য দেশের মানুষের কল্যাণ করা। এই লক্ষ্যকে সামনে রেখে সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের জীবনমান উন্নত করতে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে সুযােগ-সুবিধা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। বিভিন্ন সময় ভাতা বৃদ্ধির পাশাপাশি নতুন, নতুন লােকদের এর আওতায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

ফলে দেশের মানুষ দিন দিন আর্থিক স্বচ্ছলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমান করােনা ভাইরাস মহামারী সংক্রমন থেকে দেশের মানুষকে স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রাখতে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। তিনি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সর্বস্তরের জনসাধারণের প্রতি বার বার আহবান জানাচ্ছেন। এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালাবাজার ইউনিয়নের ফরিদপুর মাদ্রাসায়, ইউনিয়নের প্রায় ৯ শতাধিক বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার নতুন বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরােক্ত কথা বলেন।

লালাবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পীর ফয়জুল হক ইকবাল এর সভাপতিত্বে ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহিদ হােসেন এর পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা আব্দুল মুন্তাকিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক রাজ্জাক হােসেন, দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি খায়রুল ফজল, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বুলবুল আহমদ,

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আশিক আলী, যুক্তরাষ্ট্র শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমদ, যুবলীগ নেতা হেলাল আহমদ, ছাত্রনেতা জয়ন্ত গােস্বামী প্রমুখ। এমপি মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী আরাে বলেন বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী, মাতৃত্বকালীন ও মুক্তিযােদ্ধা ভাতা আওয়ামী লীগ সরকার চালু করেছে। প্রতি বছর নতুন, নতুন লােক অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। ভাতার পরিমান বৃদ্ধি করা হচ্ছে এতে যারা এ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে পারেননি পর্যায়ক্রমে প্রতি বছর বৃদ্ধি করা হবে যারা বই পাননি আগামীতে অন্তর্ভুক্ত হবেন।