সিলেটে মানছে না সামাজিক দুরত্ব নেই কারো মুখে মাস্ক হু হু করে বারছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

এনাম রহমান, সিলেট জেলা প্রতিনিধি:  সিলেটে মানা হচ্ছে না সামাজিক দুরত্ব বেশিরভাগ মানুষই পড়ছে না মাস্ক। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ব্যবসাহীদের কথা চিন্তা করে সরকার সারা দেশে সীমিত আকারে কাপড়ের মার্কেট খোলার নির্দেশনা দেয়া হয়।

প্রথম দিকে সিলেট ছিলো ব্যতিক্রম। সিলেটের বিভিন্ন মার্কেট কমিটির ব্যবসাহী নেতৃবৃন্দ, সিলেট জেলা মহানগর ব্যবসাহী ঐক্য কল্যাণ পরিষদ ও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন সিলেট চেম্বার অব কমার্স কে নিয়ে কয়েক দফা বৈঠক করেন সিলেট জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এতে সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধার্থ হয় এবারের ঈদে সিলেট কোনো মার্কেট বা কাপড়ের শোরুম খোলা হবেনা। এই সিদ্ধান্তকে সিলেটের সচেতন মহল সাধুবাদ জানান, কিন্তু এর দুদিন পর এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে নগরীর লালদিঘির পার হকার্স মার্কেট, ঐতিহ্য বাহী হাসান মার্কেট, মধুবন সুপার মার্কেট সহ বেশ কিছু শপিং কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ব্যান্ডের শোরুম।

এর পড় আমরা যা দেখলাম সাধারণ মানুষের উপছে পড়া বীর মার্কেট গুলিতে। সরকারের দেয়া নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে কেনাকাটা নিয়ে ব্যস্ত মানুষ ব্যাস্ত দোকানদার। ঈদের পর ৩১শে মে থেকে ১৫ই জুন পর্যন্ত সীমিত পরিসরে লকডাউন শীতল করা এই দুইটি মিলে এক ভয়াবহ রূপ ধারণ করে সিলেটে।

বারতে থাকে সিলেটের করোনা টেস্ট ল্যাব গুলিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে হাজারের উপরে আক্রান্তের সংখ্যা। গবীর উদ্বিগ্নে মধ্যে আছেন সিলেটের সচেতন মহল। অনেকেই সোস্যাল মিডিয়াতে অনলাইন পোর্টালে নিজেদের মতামত নিজেদের মতো প্রকাশ করছেন কটুর করে লকডাউন বারানোর জন্য কেউ কেউ আবার সিলেটে কারফিও দেয়ার পক্ষে মত প্রকাশ করছেন।