সিলেটে বিমানের টিকিটের জন্য আহাকার অতিরিক্ত টাকা দাবির অভিযোগ

এনাম রহমান, সিলেট জেলা প্রতিনিধি: সিলেট বিমানের টিকিটের জন্য আহাকার সাথে অতিরিক্ত টাকা দাবি করার অভিযোগ উঠেছে কর্তৃপক্ষ পক্ষের উপর সিলেটে বাংলাদেশ বিমানের কার্যালয়ের সামনে বিমানবন্দর-আম্বরখানা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন প্রবাসীরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় চার-পাঁচ দিন ধরে বিমান কার্যালয়ে প্রবাসীরা ভিড় করছেন। তাঁদের মধ্যে প্রায় সবাই মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে থাকেন। গতকাল প্রবাসীদের কর্মসূচির কারণে সিলেট বিমানবন্দর-আম্বরখানা সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

পরে সিলেট বিমানবন্দর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। কয়েকজন প্রবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, করোনা মহামারি চলাকালে অধিকাংশ প্রবাসী দেশে ফেরেন। কেউ কেউ করোনা পরিস্থিতির আগে থেকেই দেশে অবস্থান করছিলেন। পরে সারা বিশ্বে করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর ফিরতি টিকিট করে এলেও অনেক প্রবাসী ফিরতে পারেননি।

বর্তমানে বিভিন্ন দেশে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ায় প্রবাসীরা ফিরতে শুরু করেছেন বিভিন্ন দেশে। এমন পরিস্থিতিকে পুঁজি করে বিমানের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী টিকিটের জন্য সিরিয়াল নিতে এবং কার্যালয়ে প্রবেশ করতে টাকা দাবি করে। কয়েকজন প্রবাসী অভিযোগ করেন সিলেট বিমানের কার্যালয়ের কর্মকর্তারা ৩০ আগস্ট পর্যন্ত বিমানের টিকিট নেই বলে জানান।

তবে বাড়তি টাকা দিলে টিকিটের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন উনারা। এদিকে বিভিন্ন ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে বাড়তি টাকায় মিলছে বিমানের টিকিট। এরই প্রতিবাদে সিলেট বিমান অফিসের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন ভুক্তভোগীরা। এ বিষয়ে মৌলভীবাজার থেকে আসা দুবাইপ্রবাসী আমির উদ্দিন বলেন, ‘সকালে কার্যালয়ে এলেও আমাকে ভেতরে যেতে দিচ্ছে না।

এর আগে গত সোমবার একবার এসে সিরিয়াল দিয়ে যাই। এখন বলছে, কোনো সিরায়াল নেই, টিকিটও নেই। সিলেট নগরীর দক্ষিণ সুরমার বাসিন্দা আবুধাবি প্রবাসী রাজন আহমদ বলেন ফেব্রুয়ারিতে ফিরতি টিকিটসহ দেশে এসেছিলাম। তবে করোনার কারণে সেটি এখন বাতিল হয়েছে। তাই নতুন করে টিকিট করতে এসেছি এসে যা দেখছি মনে হচ্ছে না তারাতারি টিকিট পাওয়া যাবে।

আমাদের ভেতরে গিয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলতে দিচ্ছে না। গেটে থাকা কিছু ব্যক্তি টাকার বিনিময়ে ভেতরে যাওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার প্রস্তাব দিচ্ছেন। এমতাবস্থায় আমরা রেমিটেন্স যুদ্ধারা চোখে অন্ধকার দেখছি। এবং বিমানের উনুর্ধ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এদিকে টিকিটের জন্য অতিরিক্ত টাকা আদায় ও দাবি করার অভিযোগের বিষয়ে বাংলাদেশ বিমান সিলেটের ব্যবস্থাপক মো. শাহনেওয়াজ মজুমদার বলেন,

বাংলাদেশে বিমানের টিকিটের সংকটের কারণে সিলেটে আটকে পড়া প্রবাসীরা বিমানের কার্যালয়ের সামনে জড়ো হচ্ছেন। ৩০ আগস্ট পর্যন্ত বাংলাদেশ বিমানের কোনো ফ্লাইটে আসন খালি নেই। টিকিটের জন্য অতিরিক্ত টাকা দাবির কোনো ঘটনা ঘটেনি।

তিনি আরও বলেন আমরা প্রবাসীদের বলেছি, যাত্রীদের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় টিকিটের সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা তাঁদের কাগজপত্রের ফটোকপি ও মুঠোফোন নম্বর সংগ্রহ করে রেখেছি। টিকিটের জন্য আমরা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করব বলে জানিয়ে দিয়েছি।