সিলেটে খন্দকার মুক্তাদিরের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ করোনা রোগীদের জন্য মোবাইল অক্সিজেন ইউনিট

এনাম রহমান, সিলেট প্রতিনিধি:  সিলেট বিএনপি নেতা চেয়ারপার্সনের খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের উদ্যোগে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য ‘মোবাইল অক্সিজেন ইউনিট’ এবং নিম্নবৃত্ত শিশুদের জন্য পুষ্টিকর খাবার বিতরণের কর্মসূচী হাতে নেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারীতে বিএনপির কর্মসুচীর সাথে নিজেকে যুক্ত রাখতে এই দুটি কর্মসুচী অল্প কিছুদিনের মধ্যেই শুরু করবেন খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির।

সিলেট বিএনপি জনপ্রিয় নেতা চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের বলেন কোভিড ১৯ যুদ্ধে আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ শিরোনামে ৭ মিনিটের একটি ভিডিও বার্তার মধ্যে এমনটিই ঘোষণা দেন তিনি। ভিডিও বার্তায় তিনি বলেন, করোনা ভাইরাস মহামারীতে বাংলাদেশের বৃহত্তম দল বিএনপি শুরু থেকেই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপির একজন নগণ্য কর্মী হিসেবে আমি করোনা ভাইরাসের শুরু থেকেই বিভিন্ন উপায়ে মানুষের পাশে দাড়িয়েছে। তবে আমরা অল্প কিছুদিনের মধ্যে দুটি কর্মসুচী হাতে নিয়েছি।

এর মধ্যে একটি হচ্ছে অপুষ্টিহীনতায় ভোগে বেড়ে উঠা নিম্নবৃত্ত শিশুদের জন্য বিশেষ কয়েকটি খাবারের সমন্বয়ে খাদ্য সামগ্রী । আরেকটি হচ্ছে করোনা আক্রান্তদের জন্য ‘মোবাইল অক্সিজেন ইউনিট’। তিনি জানান,মোবাইল অক্সিজেন ইউনিট চালুর মাধ্যমে আল্লাহর ইচ্ছায় হাজার হাজার করোনা রোগীদের প্রাণ বাচাতে সহায়ক হবে। প্রাথমিক অবস্থায় এই চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হলে করোনা রোগীরা স্থিতিশীল থাকবে এবং অনেক ক্ষেত্রে আইসিইউতে নেওয়ার প্রয়োজন হবে না।

তিনি আরো জানান, আমাদের কাছে এ্যাম্বুলেন্স , কিছু অক্সিজেন সিলিন্ডার , পালস অক্সিমিটার সহ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নার্স ও ডাক্তার থাকবে। দিনে কিংবা রাতে বিশেষ কয়েকটি নাম্বারে ফোনে যোগাযোগ করে করোনা আক্রান্ত রোগী অক্সিজেনের চাহিদার কথা জানালে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত নার্স-ডাক্তাররা তাদের কাছে ছুটে যাবেন এবং চাহিদা অনুযায়ী তাদের অক্সিজেন সরবরাহ করবেন। প্রবাসীসহ দেশ-বিদেশের সকলের সহযোগীতা কামনা করে খন্দকার মুক্তাদির বলেন, আমাদের এই কাজে সাহায্য করার জন্য নগদ অর্থ সহায়তা প্রদানের প্রয়োজন নেই।

সাধ্যানুযায়ী সম্ভব হলে আমাদের অক্সিজেন সিলিন্ডার কিংবা পালস অক্সিমিটার দিয়েও সাহায্য করতে পারবেন বলে জানান তিনি। কবে থেকে এই কর্মসূচী শুরু হবে এমন কোন নির্দিষ্ট তারিখ কিংবা সর্বমোট কতোজন শিশুদের মধ্যে পুষ্টিকর খাদ্য বিতরণ করা হবে এ বিষয়ে তিনি ভিডিও বার্তায় কিছু জানান নি। এ বিষয়ে জানতে তার ব্যাক্তিগত নাম্বারে কল করলেও যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। তবে সিলেট মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক তাহসীন মেহেদী প্রিন্ চ্যানেল এস কে বলেন, আমরা কর্মসূচী হাতে নিয়েছি। কর্মসুচী সফলভাবে সম্পন্নের জন্য কিছু ভলান্টিয়ার এবং এ্যাম্বুলেন্স নির্ধারণ, অক্সিজেন সিলিন্ডার, অক্সিমিটার এবং প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নার্স-ডাক্তার চূড়ান্তকরণের কাজ চলছে। ১৫ থেকে ২০ দিনের ভিতরেই কর্মসুচী শুরু করতে পারবেন বলে জানান তিনি।