সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জালিয়াতির মামলা রেকর্ড

এনাম রহমান, সিলেট প্রতিনিধিঃ সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা অলংকারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম রুহেলের বিরুদ্ধে অবশেষে দীর্ঘ একমাস পর জালিয়াতি মামলাটি রেকর্ড করেছে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ। বিশ্বনাথ থানার মামলা নং-০৭ তারিখ, ০৯/০৮/২০২০ইং ধারা ৪৬৭/৪৬৮/৪২০/৪৭১/৫০৬ দ: বি:।

রোববার (৯ আগষ্ট) বটতলা গ্রামের মৃত জহুর আলী মিয়াজির পুত্র রুকন মিয়াজি বাদি হয়ে ৭জনের বিরুদ্ধে বিশ্বনাথ থানায় পূর্বের দাখিলকৃত অভিযোগটি পূণরায় দাখিল করলে মামলাটি রেকর্ড করা হয়।

জানা যায় দোকানের মূল মালিক যুক্তরাজ্য প্রবাসি ভুক্তভোগী হারুন মিয়ার দোকান জালিয়াতির করে অলংকারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম রুহেল বিক্রি করেছেন। এই মর্মে গত ৭ই জুলাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবরে অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী রুকন মিয়াজি, সাথে সাথে থানায় অভিযোগ ও দাখিল করেন তিনি। এদিকে মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায় বড়খুরমা গ্রামের মৃত আছলম আলীর পুত্র যুক্তরাজ্য প্রবাসি হারুন মিয়া উরফে ইরন মিয়ার পনাউল্লা বাজারের ২২নং দোকান ঘরটি বিক্রি করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় নাজমুল ইসলাম রুহেল চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে নিজে পনাউল্লা বাজার কমিটির সেক্রেটারি হয়ে জাল সীল তৈরী করে দোকানটি নিজের নামে জাল দলিলের মাধ্যমে দখলের চেষ্টা করেন। এনিয়ে থানায় মামলা হলে হারুন মিয়ার স্বাক্ষর সঠিক কিনা তা প্রমানের জন্য ঢাকা সিআইডিতে প্রেরণ করা হয়। সিআইডির রিপোর্টে হারুন মিয়ার স্বাক্ষর জাল প্রমাণিত হয়।

আর এই খবর পেয়ে চেয়ারম্যান রুহেল পূণরায় আরেকটি জাল দলিল তৈরী করে দোকান ঘরটি প্রতারনা ও জালিয়াতির মাধ্যমে অন্যজনের নিকট বিক্রি করে দেন। দোকানের মালিক হারুন মিয়ার লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে পূণরায় রুহেলের বিরুদ্ধে গত ৭ জুলাই থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন। কিন্তু এই অভিযোগটি পুলিশ মামলা হিসেবে রেকর্ড না করায় সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত রোহেল চেয়ারম্যানের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। অএ অলংকারি ইউনিয়ন পরিষদের সচীব মনির উদ্দিন বলেন, গত ১০/১২দিন ধরে চেয়ারম্যানের সাহেবের সাথে আমার কোন যোগাযোগ নেই। আমার মা মারা গেছেন এ ব্যাপারে এখন আর কিছু বলতে পারবনা।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামীম মুসা বলেন, মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে, যতদ্রত সম্ভব আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।