সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ এনজিও কর্মকর্তার নামে মিথ্যা মামলা, নিরাপত্তাহিনতায় কর্মীরা

মাহফুজুর রহমান বাপ্পী, বাগেরহাট প্রতিনিধি বাগেরহাটের শরণখোলায় জোয়ার ইকোট্যুরিজম প্রাইভেট লিমিটেড নামের সদ্য কাজ শুরু করা একটি বেসরকারী সংস্থার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে একটি স্বার্থান্বেসী মহল। সংস্থাটির পরিচালকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলাসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একের পর এক অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে তারা।
বর্তমানে ওই মহলটির অব্যাহত হুমকিতে তাদের কর্মীবৃন্দ নিরাপত্তাহিনতায় ভুগছেন। সোমবার সকালে সংস্থাটির প্রকল্প সম্মন্বয়কারী সুবর্ণা রাণী মিত্র শরণখোলা প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, প্রায় ৮মাস আগে তারা সুন্দরবন নির্ভরশীল জনগোষ্ঠির বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষে শরণখোলায় কাজ শুরু করেন। এর আগে শরণখোলা প্রেসক্লাবে প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক ও গন্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে এক মতবিনিময় সভা করা হয়।
এরপর সুন্দরবন সংলগ্ন শরণখোলা বাজারের পাশে ১২ বিঘা জমির উপর ইকোপার্ক নির্মানের কাজ করছেন। কিন্তু এসব কাজ শুরু করার পর থেকে স্থানীয় একটি এনজিও’র পরিচালক ঈর্ষান্বিত হয়ে তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু করেন। প্রথমে জোয়ার সাতক্ষিরা নামে একটি ফেইসবুক আইডি খুলে বিভিন্ন অপপ্রচার চালায়। এব্যাপারে তারা শরণখোলা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।
এ অবস্থায় গত ১ মে তাদের সংস্থার সাবেক কর্মী সুমি আক্তার ও মারুফা বেগমের মধ্যে পারিবারিক কলহের জের ধরে মারামারি সংগঠিত হয়। এর চার মাস আগে মারুফা বেগমকে চাকুরি থেকে আপসারনের সময় একমাসের বেতন নিয়ে তাদের সংস্থার পরিচালক আঃ রহমান আকাশের সাথে বিরোধ চলে আসছে। এই সুযোগটিকে কাজে লাগায় স্বার্থান্বেসী মহলটি। মারুফা বেগমকে হাতিয়ার হিসাবে ব্যাবহার করে পরিচালক আঃ রহমান আকাশের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করানো হয়।
এছাড়া বিভিন্ন সময় অনৈতিক সুবিধা আদায় করতে না পেরে কতিপয় ব্যাক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে বিভিন্ন প্রকার হুমকিসহ কুরুচিপূর্ণ অপপ্রচার চালিয়ে তাদেরকে হেয়প্রতিপন্ন করে চলছে। তাই এব্যাপারে নিরপেক্ষ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য সরকার ও প্রশাসনের উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন তারা। এব্যাপারে শরণখোলা থানার অফিসার ইন চার্জ এসকে আব্দুল্লাহ আল সাইদ জানান, একটি মারামারির ঘটনায় মারুফা বেগম বাদী হয়ে জোয়ার এনজিও’র পরিচালকসহ তিনজনের নামে মামলা করেছেন। ঘটনাটি তদন্তাধীন রয়েছে।