সাংবাদিক আতিকউল্লাহর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

দৈনিক জনকণ্ঠ পত্রিকার প্রকাশক, সম্পাদক ও গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের চেয়ারম্যান আতিকউল্লাহ খান মাসুদ(৭১) হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা গেছেন।

ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বঙ্গভবন প্রেস উইং জানায়, শোক বার্তায় রাষ্ট্রপতি মরহুম আতিকউল্লাহ খান মাসুদের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং জানায়, শোক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

সোমবার (২২ মার্চ) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে হঠাৎ তিনি বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়েন।

তাকে দ্রুত বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান আতিকউল্লাহ খান মাসুদ।

হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

জনকণ্ঠের প্রধান প্রতিবেদক ও ডেপুটি এডিটর ওবায়দুল কবির গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

এরপর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদের সম্পাদনায় ১৯৯৩ সালে প্রকাশিত হয় দৈনিক জনকণ্ঠ।

এ পত্রিকাটি সর্বপ্রথম দেশের কয়েকটি স্থান থেকে একযোগে ছাপা শুরু হয়েছিল। পরে অবশ্য সেটি চলমান থাকেনি।

১৯৫১ সালের ২৯ আগস্ট মুন্সিগঞ্জ জেলার মেদিনীমণ্ডল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন আতিকউল্লাহ খান মাসুদ। মুক্তিযুদ্ধে ২ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেন তিনি।