আবারও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানাল বিএনপি

আবারও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানাল বিএনপি।

শনিবার (১১ মার্চ) সকালে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর

উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির আয়োজনে প্রতিবাদ সমাবেশে এ দাবি জানান দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই যে নির্বাচন কমিশন তারা সমস্ত নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে।

তাদের অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। আর এ সরকারকে অবিলম্বে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।

তিনি আরো বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে ক্ষমতা দখল করে এখন ডিজিটাল আইনের মাধ্যমে টিকে থাকতে চায় সরকার।

এ সময় তিনি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বাতিল দাবি জানান।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে থাকাকালে নির্যাতনের অভিযোগে মামলা করায় কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরকে অভিবাদন জানিয়েছেন মির্জা ফখরুল।

ফখরুল বলেন, অবিলম্বে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে।

এই আইনে গ্রেফতার সবাইকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে।

পুলিশের দেয়া এক ঘণ্টার সময়সীমা মেনে নিয়ে সকালে কয়েকজন নেতাকর্মী নিয়ে শুরু করে বিএনপি।

পরে সমাগম সামান্য বাড়লেও পরিসর ছিল খুবই ছোট।

সমাবেশকে কেন্দ্র করে প্রেসক্লাব এলাকায় মোতায়েন করা হয় বিপুলসংখ্যক পুলিশ।

ফখরুল আরও বলেন, নিরপেক্ষ সরকার ও ইসির অধীনে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে জনগণের সংসদ ও সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

সেই লক্ষ্যে আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হই। কোনকিছুই আমাদের আটকাতে পারবে না।

জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাব এই হোক আজকে আমাদের শপথ।

বর্তমান সরকার গণতান্ত্রিক সরকার নয় মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই সরকার জনগণের সরকার নয়।

তারা জোর করে রাষ্ট্র ক্ষমতাকে ব্যবহার করে,

রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে আজকে বেআইনিভাবে ভোটের আগের রাতে ভোট কেড়ে নিয়ে তারা ক্ষমতা দখল করে আছে।

এই দখলদার সরকার শুধু ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন তৈরি করেছে,

যা দিয়ে অন্যায় ও অত্যাচার করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারে।

হাবিব উন নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান,

সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম,

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিদ আঞ্জু প্রমুখ বক্তব্য দেন।