‘সরকারের লোকজন প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে বলছেন করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে অথচ বাস্তব চিত্র করোনা মহামারী’ : রুহুল কবির রিজভী

মজাহারুল ইসলাম মিলন, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সরকারের লোকজন প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে বলছেন করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। করোনাতো নিয়ন্ত্রনে নেই বরং ব্যাপক বিস্তার লাভ করছে। দেখা দিয়েছে মহামারী আকারে।

ঢাকাতে যে ব্যাপক মাত্রায় বিস্তার লাভ করেছিল তা এখন মফস্বল ও জেলা শহরগুলোতে ছড়িয়ে পরেছে মহামারী আকারে। কুড়িগ্রামেও করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রীর সাম্প্রতিক বক্তব্যকে ইঙ্গিত করে তিনি আরো বলেন, সুন্দর সুন্দর কথা বললেও করোনা মোকাবিলায় সরকারের কোন প্রস্তুতি না থাকায় করোনা মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। করোনা সুরক্ষা সামগ্রি বিতরণেও ব্যর্থ হয়েছে সরকার। স্বাস্থ্য খাত দূর্নীতিতে নিমজ্জিত। এর সঙ্গে সরকার দলীয় লোকজনই জড়িত।

মঙ্গলবার কুড়িগ্রাম প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের বিএনপি’র পক্ষ থেকে সুরক্ষা সামগ্রি বিতরণকালে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী এসব কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলের মানুষ এবারে দীর্ঘ সময় ধরে বন্যা মোকবিলা করলেও অসহায় বানভাসিদের জন্য সরকারের সহায়তা যথেষ্ট নয়। নদী শাসন, খনন, বাঁধ রক্ষায় নজর না দেয়ায় এ জনপদে ফি-বছরের বন্যায় ও নদী ভাঙ্গনে মানুষ নি:স্ব থেকে নি:স্ব হচ্ছে। বাড়ছে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা। কুড়িগ্রামকে সর্বগ্রাসী বন্যার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য যে সমন্বিত প্রচেষ্টা তা সরকারের দিক থেকে আমরা পাচ্ছি না। সরকার দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা নিচ্ছে না।

তিনি বলেন, এ জেলার মানুষ দীর্ঘ দিন মঙ্গা, দুর্ভিক্ষের কথা ছোট বেলা থেকেই এসব শুনে আসছে। এসব মোকাবেলায় যে পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন তা নিচ্ছে না সরকার। নদীকে বাঁচাতে নদ-নদীর ভড়াট হওয়া তলদেশ খনন, তীর রক্ষায় বাঁধ দেয়া দরকার। এসব উন্নয়নের কথা সরকার মুখে আছে, কাজে নাই। আমি বলবো সরকার উন্নয়নের কথা মুখে না বলে দ্রুত কুড়িগ্রাম জেলার মানুষকে বাঁচাতে বন্যা, নদী ভাঙ্গন ও দরিদ্র বিমোচনে দ্রুত সমন্বিত ব্যবস্থা গ্রহন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রাশেদুল হক, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রানা, সহ সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক, মোস্তাফিজুর রহমান, শফিকুল ইসলাম বেবু, যুগ্ম সম্পাদক হাসিবুর রহমান হাসিব, ব্যারিস্টার রবিউল আলম সৈকত প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে এক হাজার সার্জিক্যাল মাস্ক, ৪৫টি পিপিই, হ্যান্ড সেনিটাইজার ও সাবান বিতরণ করা হয়।