সমুদ্রে ৬৫ দিন মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, দেশের অর্থনীতির ও মানুষের পুষ্টি বৃদ্ধির জন্য বিদেশি বা দেশি মৎস্য আহরণকারীদের অবৈধ মৎস্য আহরণ যেকোনো মূল্যে বন্ধ করতে হবে।

বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় আগামী ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত সব ধরনের নৌযানে করে সব ধরনের মৎস্য ও ক্রাস্টাশিয়ান্স (চিংড়ি, লবস্টার, কাটল ফিস প্রভৃতি) আহরণ নিষিদ্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

আজ রোববার সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমুদ্রে ৬৫ দিন মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধকাল কার্যকরভাবে বাস্তবায়নে আয়োজিত অনলাইন সভায় সভাপতির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা জানান।

দেশে পুষ্টির অভাব দূর করতে হলে মাছের চাষ বৃদ্ধি করা খুবই দরকার উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘মাছে যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা আমরা অর্জন করেছি, তার পরিসর আরো বাড়াতে হবে। যাতে বিদেশে মাছ রপ্তানি করে গুরুত্বপূর্ণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা যায়।’

‘ধানের বাম্পার ফলনের পাশাপাশি মাছ, মাংস, দুধ, ডিমের ক্ষেত্রকে সমৃদ্ধ করতে না পারলে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেও সংকট থেকে যেতে পারে,’ যোগ করেন শ ম রেজাউল করিম।