সমুদ্রসীমা রক্ষায় নৌবাহিনীকে শক্তিশালী করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ কারো সাথে যুদ্ধ করতে চায় না। কিন্তু আক্রান্ত হলে তা মোকাবেলার সামর্থ্য অর্জন করতে চায়।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে নৌ বাহিনীর ৫টি জাহাজের কমিশনিং অনুষ্ঠানে তিনি একথা জানান।বলেন, শুধু সমুদ্রসীমা রক্ষা না, সমুদ্রের সম্পদ যাতে আহরণ ও ব্যবহার করা যায়, সেটাই সরকারের লক্ষ্য।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নৌবাহিনী তথা স্বশস্ত্রবাহিনীকে আধুনিক করে তুলতে নেয়া হচ্ছে বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ। শুধু দেশের অভ্যন্তরেই না, প্রয়োজনে প্রতিবেশী দেশকেও সহযোগিতা করে যাচ্ছে এ বাহিনী, এমনটাই জানান সরকারপ্রধান শেখ হাসিনা।

শুরুতেই প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল এম শাহীন ইকবাল জাহাজগুলোর অধিনায়কের হাতে কমিশনিং ফরমান তুলে দেন। এরপর উন্মোচন করা হয় জাহাজের নামফলক।

দেশের সমুদ্রসীমা রক্ষায় নৌবাহিনীর ভূমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নৌ-বাহিনীকে আরও আধুনিক করে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

বহিঃশক্তির হাত থেকে দেশকে সুরক্ষিত রাখতে নৌবাহিনীর সদস্যদের দক্ষ হয়ে গড়ে ওঠার নির্দেশও দেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা অতিমারিতেও দেশের অর্থনীতি গতিশীল আছে জানিয়ে দেশবাসীকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।