সংসদ সদস্য মঈন উদ্দীন খান বাদল আর নেই

মঈন উদ্দীন খান বাদল আর নেই

চট্টগ্রাম-৮ আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য মঈন উদ্দীন খান বাদল ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)।
বৃহস্পতিবার ভোর ৫টার দিকে ভারতের বেঙ্গালুরুর নারায়ণ হৃদরোগ রিসার্চ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। তিনি তিন ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
তার ভাই মনির উদ্দীন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেন ।
প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ দেবী শেঠির তত্ত্বাবধানে ছিলেন মঈন উদ্দীন খান বাদল। চিকিৎসাধীন অবস্থায় হার্টফেল করায় তিনি মারা যান।
মরহুমের মরদেহ দ্রæত বাংলাদেশে আনা হবে বলে জানান তার ভাই মনির উদ্দীন।
এদিকে মঈন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
দুই বছর আগে ব্রেইন স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে গুরুতর অসুস্থ ছিলেন মইন উদ্দীন খান বাদল। এদিকে হার্টেরও সমস্যা ছিল তার। দুই সপ্তাহ আগে নিয়মিত চেকআপের জন্য তাকে ভারতে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরন করেন তিনি।
বাংলাদেশ জাসদের কার্যকরি পরিষদের সভাপতি ছিলেন বাদল। তিনি ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রæয়ারি চট্টগ্রামের বোয়ালখালীর সাতেলিতে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা আহমদ উল্লাহ খান ও মা যতুমা খাতুন।
চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চান্দগাঁও) আসন থেকে তিনি তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সংসদে অনলবর্ষী বক্তা হিসেবে খ্যাতি রয়েছে তার।
২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাসদের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন। এছাড়া দশম জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি। সবশেষ একাদশ জাতীয় সংসদেও তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।
ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে উঠে আসা বাদল একাত্তরের রণাঙ্গনে জীবনবাজি রেখে লড়েছেন দেশের জন্য। বাঙালিদের ওপর আক্রমণের জন্য পাকিস্তান থেকে আনা অস্ত্র চট্টগ্রাম বন্দরে সোয়াত জাহাজ থেকে খালাসের সময় প্রতিরোধের অন্যতম নেতৃত্বদাতা ছিলেন এ বীর মুক্তিযোদ্ধা।
মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে বাদল সমাজতান্ত্রিক রাজনীতির প্রতি আকৃষ্ট হন তিনি। জাসদ, বাসদ হয়ে আবার পুনরায় জাসদে তীরে ভিড়েন মঈন উদ্দীন খান বাদল । আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৪ দল গঠনেও তার উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল।