শেরপুরে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী ও সহকারী প্রকৌশলী বদলি

সোহেল রানা, শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুরে দুইটি সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করতে গিয়ে নিম্নমানের কাঁচামাল ব্যবহারের অভিযোগে সম্প্রতি নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন শেরপুর সদর-১ আসনের এমপি ও সরকার দলীয় হুইপ আতিউর রহমান আতিক।

বন্ধ করার ক’দিন পর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয় একজন উপ-সচিব ও একজন সহকারি সচিবসহ দুই সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত টিম বুধবার (৮ জুলাই) ও বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) শেরপুর-জামালপুর কজওয়েতে উপ-সচিব মোঃ আজিজুর রহমান ও সহকারি সচিব মাহবুব-এ-এলাহী’র নেতৃতে তদন্ত শুরু করেন।

তদন্তে নিম্নমানের অভিযোগ সত্যতা পাওয়া পায়। পরে সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী শেরপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান উদ্দিন আহমেদকে ফেনী জেলায় এবং উপ-সহকারি প্রকৌশলী মোঃ আজাহারুল ইসলাম আজাদকে মেহেরপুর জেলায় বদলির আদেশ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেন। এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তদন্ত টিমের প্রধান উপ-সচিব মোঃ আজিজুর রহমান বলেন,

এই সড়কের নির্মাণ কাজের কোন কাটিং করা হয়েছে এবং সেতুর পাইলিং ঢালাইয়ের ব্যবহৃত নির্মাণ সামগ্রী ল্যাবে টেস্টের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে শুধু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোজাহার এন্টারপ্রাইজ (প্রাঃ) লিমিটেড নয় এই কাজের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে। উল্লেখ্য,

জামালপুর-শেরপুর-বনগাঁও (আর-৪৬০) সড়কের শিমুলতলী ও পোড়াদাহ এলাকায় আঠারো মাসের প্রকল্প মেয়াদে শিমুলতলী সেতুতে ১২৫.৪৯৭ মিটার দৈর্ঘ্যে ১৮ কোটি ৭৫৮ লক্ষ টাকা ও পোড়াদাহ সেতুতে ১২৫.৪৯৯ মিটার দৈর্ঘ্যে ২০ কোটি ৯২৩ লক্ষ টাকা প্রকল্প মূল্য ধরা হয়েছে।