শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির প্রচেষ্টায় চাঁদপুরে ব্যাপক উন্নয়ন

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: : চাঁদপুর সদর উপজেলার ৩ নং কল্যাণপুর ইউনিয়নে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃদীপু মনির ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় রাস্তা ঘাট,স্কুল, মাদ্রাসা,মসজিদ, মন্দির কাচা রাস্তার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে বলে কল্যাণপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন পাটোয়ারী রনি জানান।

তিনি বলেন,প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ উন্নয়নের শিকড়ে উঠেছে।আর চাঁদপুরের উন্নয়নের রূপকার শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃদীপু মনি এমপি। কল্যাণপুর ইউনিয়ন এখন উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে।তা সম্ভব হয়েছে ডাঃদীপু মনির একান্ত প্রচেষ্টায়।

তিনি আরো জানান,এ ইউনিয়নে আমি ২০১৬সালের ১৬নভেম্বর নির্বাচন করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি।আমার পরিষদের সময় আছে ২০২১সালের ২১নভেম্বর পর্যন্ত।আমি চেষ্টা করেঝি আমার ইউনিয়নের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে।এ ক বছরে শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির মাধ্যমে ৬কোটি টাকা ব্যায়ে ২টি উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ তলা ভবন নির্মান করা হয়েছে।২কোটি টাকা ব্যায়ে ২টি নতুন দৃতল প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মান, ২কোটি টাকা ব্যায়ে ২টি একতলা ভবন প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মান করা হয়েছে।৫০লাখ টাকা ব্যায়ে নতুন কমিউনিটি ক্লিনিক, ২ লাখ টাকা ব্যায়ে ৪টি কমিউনিটি ক্লিনিক সংস্কার ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বাউন্ডারি দেয়াল নির্মান করা হয়েছে। বৈশ্বিক মহামারি করোনায় ইউনিয়ন বাসীকে সুরক্ষায় রাখতে প্রায় ২০ লাখ ব্যয় করে উপকরন দেয়া হয়েছে।২কোটি ১০লাখ টাকা ব্যয়ে নতুন ৭টি ব্রিজ ও ২টি ব্রিজের সংস্কার করা হয়েছে।১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৭ টি নতুন সড়ক পাকা করন ও ৪ টি সড়ক সংস্কার করা হয়েছে।৫০লাখ টাকা ব্যয়ে ২২টি সিসি পাকা সড়ক করা হয়েছে। ৬০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৪০জন গৃহহীন কে ৪০টি ঘর দেয়া হয়েছে।১কোটি টাকা ব্যয়ে আর্সেনিক মুক্ত ১৫৯টি গভীর নলকুপ বরাদ্ধ পাওয়া গেছে, ইতি মধ্যে ১৫০ টি গভীর নলকুপ স্হাপন করা হয়েছে।২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫ কিলোমিটার বিদ্যুতের নতুন লাইন স্হাপন করা হয়েছে।৩কোটি টাকা ব্যয়ে বিদ্যুতের সাব সেন্টার নির্মান করা হয়েছে।৫০লাখ টাকা ব্যয়ে ৩০টি গাইড দেয়াল নির্মান করা হয়েছে।২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ১০ টি পাকা ঘাটলা নির্মান করা হয়েছে।৩কোটি টাকা ব্যয়ে ঘুর্নিঝড় আশ্রয়ন কেন্দ্রের কাজ চলমান রয়েছে।১কোটি টাকা ব্যয়ে ইউনিয়নের ৬২টি মসজিদ সংস্কার করা হয়েছে।৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৭টি মন্দির সংস্কার, ১৬৬টি কাঁচা সড়ক সংস্কার, ৪৫০জনকে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধি ভাতার কার্ড করে দেয়া হয়েছে।৭৭৩জনকে নিবন্ধিত জেলেকে সরকারের সকল সুযোগ সুবিধা দেয়া হয়েছে। ১শ জনকে বিজিডি কার্ডের চাল দেয়া হচ্ছে।করোনা কালে ২০ মানুষকে বিজিএফ ও বিজিডি কার্ডের চাল দেয়া হয়েছে।২ শ জেলেকে ২শ সেলাই মেশিন দেয়া হয়েছে।২ হাজার গাছের চারা দিয়ে প্রধান মনত্রীর সবুজ বনায়ন করা হয়েছে।এমনি ভাবে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রেখে ২ হাজার শিক্ষার্থীকে সরকারি উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে, ঈদগাহ ও গনকবর স্হান সংস্কার করা হয়েছে।এই ইউনিয়নে ২৪ হাজার জনসংখ্যা থাকলে ও ভোটার রয়েছে ১৭হাজার। এদের জান মালের দায়িত্ব আমাদের পরিষদের।

আমাদের যে ক’দিন দায়িত্ব রয়েছে আমরা ইউনিয়নের উন্নয়ন করে যাবো শিক্ষা মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির হাত ধরে।