লিবিয়ায় পাচারকারীদের গুলিতে নিহত ৬ পরিবারে চলছে শোকের মাতম 

জয়নাল আবেদীন রিটন, ভৈরব প্রতিনিধি ॥ লিবিয়ার দক্ষিনণাঞ্চলীয় শহর মিজদাহতে কমপক্ষে ২৬জন বাংলাদেশীসহ ৩০জনকে পাচারকারীরা জিম্মি করে গুলি করে হত্যা করে,সেখানে আরো ১১বাংলাদেশি মারাত্মক আহত হয়েছেন । এদের মধ্যে ৬ জনের বাড়ী ভৈরবের বিভিন্ন গ্রামে বলে জানা গেছে।

তাদের সবার পরিবারে চলছে শোকের মাতম । বিভিন্ন সময়ে দালালের মাধ্যমে ইউরোপের ইতালি যাওয়ার উদ্দেশ্যের লিবিয়ায় পাড়ি জমান তারা । লিবিয়ায় বেনগাজী থেকে মরূভূমি পাড়ি দিয়ে কাজের সন্ধানে যাচ্ছিলেন তারা । সে পথে মানব পাচার কারীরা তাদের জিম্মি করে ।

ঘটনাস্থল ত্রিপলি শহর থেকে ১৮০ কিলোমিটার দক্ষিনে । মানবপাচারকারীরা মোট ৩৮জনকে জড়ো করে । উদ্দেশ্য তাদের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করা। অপহৃতদের রাজধানী ত্রিপলিতে নিয়ে  মুক্তিপন আদায়ের জন্যে মিজদাহ শহরে নিয়েই শুরু হয় বর্বর নির্যাতন ।

পরে জিম্মিদের এলোপাতাড়ি গুলিতে ঘটনা স্থলেই অন্তত ২৬ বাংলাদেশি নিহত হয় । এর মধ্যে ৬ জনের বাড়ী ভৈরব বলে খবর পাওয়া গেছে । ভৈরব থানা সূত্রে জানা যায়, লিবিয়ার অবস্থান রত উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৮জন যুবকের সন্ধান মিলছে না ।

তাদের মধ্যে সাদেকপুর ইউনিয়নের রসুলপুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে, সাদ্দাম হোসেন আকাশ, আকবর নগর গ্রামের পিতা জিন্নত আলী মিয়ার ছেলে মাহাবুব হোসেন , শ্র্রীনগর গ্রামের বাচচু মেলিটারি ছেলে সাকিব হোসেন ,  শম্ভুপুর বড়কান্দা গ্রামের লিয়াকত মিয়ার ছেলে মামুন মিয়া , একই এলাকার সাদ্দাম মিয়া , পিতার নাম অজ্ঞাত ও শম্ভুপুরে মোকশেদ আলীর পুত্র মোহাম্মদ আলী , বলে জানা গেছে ।

ভৈরব থানার ওসি মো: শাহিন জানান, উপজেলা থেকে দালালের মাধ্যমে অবৈধ পথে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে না যাওয়ার জন্য আমাদের প্রচারনার চালানো পরেও , দালালদের প্রলোভনে যুবকদের অবৈধ পথে লিবিয়াকে ব্যবহার করছে ।বৃহস্পতিবারের  গোলাগুলিতে নিহতের কোনো তালিকা আমাদের কাছে আসে নাই ।

তবে ভৈরবের লিবিয়ায় অবস্থানরত নিখোঁজ পরিবারের তথ্যের ভিত্তিতে ৮জনের একটি তালিকা আমরা করেছি । বিভিন্ন মাধ্যম সুত্রে জানা যায়, লিবিয়া অবস্থানরত ভৈরবের আরো আনেক পরিবারের সাথে প্রবাসী যুবকদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে । ভৈরবের নিখোজের তালিকা আরো দীর্ঘ হওয়ার আশংকা রয়েছে বলে নিখোজদের পরিবারের লোকজন জানায়।