লক্ষ্মীপুরে প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক’র নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন

নুরুল আমিন দুলাল ভূঁইয়া, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর ও রামগতির নদী ভাঁঙন পরির্দশণ শেষে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক বলেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক দেশে অনেক অগ্রসর হয়েছি। মধ্য মায়ের দেশে পৌঁেচছি। ৩১ সালে উচ্চ মধ্য মায়ের দেশে পৌঁছাবো।

২০৪১ সালে মধ্যে বাংলাদেশ সমৃদ্ধী দেশে পৌছবে। শুক্রবার সকালে লুধুয়া বাঘার হাট বাজার এলাকায় নদীভাঙন এলাকা পরিদর্শন শেষে পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে তিনি এই কথা বলেন। তিনি বিগত সরকারের আমলে কোন উন্নয়ন না হলেও বাংলাদেশ বর্তমানে শেখ হাসিনার হাত ধরে অর্থনৈতিকভাবে অগ্রসর বলে মন্তব্য করেছেন।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক আরও বলেন, বাংলাদেশ নদী মাতৃক দেশ নদী ভাঙ্গন বহুকাল থেকে চলে আসছে। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ভাবে অগ্রসর। নদী ভাঙ্গন রোধে সরকার আন্তরিক, ইতিমধ্যে কয়েকটি প্রকল্প চলমান। নদী শাসন রোধে বিভিন্ন বড় বড় পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে। এক কিলোমিটারে ছোট নদীতে ব্লকে খরচ পরে ৩০ কোটি টাকা আর বড় নদীতে ৮০ থেকে ৯০ কোটি টাকা খরচ পরে।

লক্ষ্মীপুরে মেঘনা নদী ৩০ বছর ধরে ভাঙছে। তড়িঘড়ি করে নদী ভাঙ্গন রোধ সম্ভব নয়, ধৈর্য ধারন করতে হবে। অতিসত্ত্বর কমলনগর রামগতি নদী ভাঙ্গন রোধে প্রকল্প অনুমোদন করা হবে এবং দ্রুত কাজ শুরু করা হবে। করোনার জন্য আমাদের অনেক পরিকল্পনা ধীরগতি হয়েছে। সভায় সভাপত্বি করেন কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন মাষ্টার,

বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য দেন লক্ষ্মীপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মেজর (অবঃ) আব্দুল মান্নান ভূইয়া, এসময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির সহ-সম্পাদক আব্দুজ্জাহের সাজু,জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল, জেলা পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফারুক হোসেন,

কমলনগর উপজেলা চেয়ারম্যান মেজবাহ উদ্দিন বাপ্পী,কমলনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোবারক হোসেন এবং রামগতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল মোমেন প্রমুখ। পরে প্রতিমন্ত্রী রামগতি উপজেলার সোনালীগ্রাম, বালুরচর ও চরআলগী এলাকায় মেঘনা নদীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। উল্লেখ্য,৭১ টিভিতে বেশ কয়েকটি নদী ভাঙন নি ধারাবাহিক সংবাদ পরিবেশনের প্রেক্ষিতে প্রতিমন্ত্রীর মেঘনার ভাঙ্গন তথা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শণ করেন।

সম্প্রতি মেঘনার ভয়াবহ ভাঙ্গনে নতুন করে সদর উপজেলা বুড়িরঘাট ও কমলনগরের চরকালকিনি এবং রামগতি উপজেলার উত্তর পশ্চিম আলেকজান্ডারে দু’কি.মি বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে ২৬ হাজার হেক্টরের আউশ, রোপা আমন ও বীজতলাসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। বর্তমানে রামগতি থেকে কমলনগর হয়ে সদর উপজেলার বুড়িরঘাট পর্যন্ত ৩১ কি.মি. বেড়িবঁাধ না থাকায় এলাকার মানুষ ভাঙ্গন আতংকে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে