লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে নতুন করে আরো চৌদ্দ জন করোনায় আক্রান্ত

নুরুল আমিন দুলাল ভূঁইয়া, জেলা প্রতিনিধি লক্ষ্মীপুর:

জাগো রায়পুরী জাগো শুরু করোনার খেলা,

সময় থাকতেই রুখে দাঁড়াও করো না’তো আর হেলা!!

এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখেই গত ০৪-০৫-২০২০ তারিখে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ১৩ বছরের যে ছেলেটির শরীরে বাহক হয়েই করোনা ভাইরাস প্রথমবারের মতো রায়পুর উপজেলায় তার আগমনের বার্তা পৌঁছে দিয়েছিল।

গতকাল আবারও তারই মাধ্যমে লকডাউন থাকা অবস্থায় রায়পুর উপজেলার ৪নং সোনাপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডে প্রথমবারের মতো একই সাথে ১২জনের করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়। আশংকা করা হচ্ছে, এই সংখ্যা আরও বাড়তেপারে।

আজ সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, ওসি (তদন্ত), সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান, সচিব, ইউপি সদস্যসহ গ্রাম পুলিশের সহায়তায় পুরো এলাকাটি লকডাউন করা হয়েছে। এবং ওই এলাকায় লাল পতাকা দিয়ে হোম আইসোলেশন বাধ্যতামূলকভাবে মেনে চলার জন্য মসজিদে সতর্কতামূলক মাইকিং করা হয়েছে।

করোনা পজেটিভ হওয়ায় দ্রুত আরোগ্য লাভের উদ্দেশ্যে পরিবারের সকলকে যথাযথভাবে আইসোলেশনে থাকার পরামর্শ প্রদান করেনন রায়পুর উপজেলা প্রশাসন।

সকলেই যেন লকডাউন মেনে চলে সে জন্য গ্রাম পুলিশ দিয়ে পাহারার ব্যাবস্থার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান এবং ইউপি সদস্যদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

করোনার পাশাপাশি রাখালিয়া বাজারে অভিযানের প্রেক্ষিতে মোবাইল কোর্ট এর আওতায় অননুমোদিত দোকান খোলা রাখার দায়ে ০১টি মামলায় ২০০০/- টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যানসহ উপস্থিত বাজার কমিটি কর্তৃক রাখালিয়া বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য এবং ফার্মেসীর দোকান ছাড়া সকল দোকানপাট আবশ্যিকভাবে বন্ধের পাশাপাশি জনসমাগম দূর করার প্রত্যয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

প্রতিনিয়ত বাজার মনিটরিং অব্যাহত রাখার নিমিত্তে সচেতনতামূলক দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

রায়পুর উপজেলা নির্ববাহী অফিসার শাবরীন চৌধুরী বলেন আসুন সচেতনতার লড়াইয়ে আমরা সবাই যার যার অবস্থান থেকে সচেতনতার সহিত রুখে দাঁড়াই। এখন’তো অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে আমাদের। “জনসেবায় সর্বক্ষণ জনগণের দোরগোড়ায় প্রশাসন”।