রেলের গেটম্যানকে মারধরের অভিযোগ নারী ইউএনও’র বিরুদ্ধে

ট্রেন আসার সংকেতে শুনে রেল ক্রসিংয়ের নিরাপত্তা গেট নামিয়ে দেয়ায় গেটম্যানের উপর চটেছেন এক নারী ইউএনও। শুধু চটেই ক্ষান্ত হয়নি সেই নারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গেটম্যানকে মরধরের অভিযোগ উঠেছে। তিনি কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাউছার আজিজ।

এ ঘটনায় নেটিজেনরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। কীভাবে একজন নারী সরকারি কর্মকর্তা রেলওয়ের গেটম্যানের গায়ে হাত তুলতে পারল সে প্রশ্নও করেছেন কেউ কেউ ।

জয়নুল আবেদিন নামে একজন  লিখেছেন কিভাবে ওই নারী কর্মকর্তা দয়িত্বরত রেলের গেটম্যানকে মারধর করতে পারলো। এ ঘটনায় ওই নারীর শাস্তি দাবী করেছেন তিনি।

মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান নামের একজন লিখেছেন, প্রভুত্ব বজায় রাখাটাই আমাদের ধর্ম! আমরা সরকারি চাকরিজীবীরা এখন জনগণের চাকর নই বরং প্রভু!

সানজিদা আক্তার নামের এক নারী লিখেছেন, গেটম্যান তার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করেছেন। তাকে সম্মান জানাই। ইউএনও নারী তার বংশের পরিচয় জাতির সামনে উপস্থাপন করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর দুপুরে কুলিয়ারচর উপজেলার ছয়সূতি নামক স্থানে গেটম্যান সিফরাত হোসেন দায়িত্ব পালন করছিলেন। এসময় চট্টগ্রাম-ময়মনসিংহগামী বিজয় এক্সপ্রেস আন্তঃনগর ট্রেনটি ভৈরব রেলওয়ে স্টেশন থেকে আসার সংকেত পেয়ে দুর্ঘটনা এড়াতে ছয়সূতি-কুলিয়ারচর এলাকার মধ্যবর্তী নিরাপত্তা গেট নামিয়ে দেন গেটম্যান।

এতে সাময়িক সময়ের জন্য সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় অন্যান্য যানবাহনের সঙ্গে কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গাড়িটি আটকা পড়ে।

পরে ইউএনও গেটটি খুলে দিতে বলেন। কিন্তু গেটম্যান নিরাপত্তা গেট না তোলায় ইউএনও কাউসার আজিজ ও তার চালক তার সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন।

গেটম্যান সিফরাতকে গালিগালাজ ও মারধর করেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে ।

ঘটনাটি রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পরে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রেলওয়ে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়।তবে এঘটনায়  মারধর করেননি বলে দাবি করেন ওই ইউএনও।