রায়পুরে রাস্তা নির্মান কাজে ঠিকাদারের অনিয়ম ও নিম্নমানের কংকর ব্যবহার !

নুরুল আমিন দুলাল ভূঁইয়া, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার লুধুয়া গ্রামে রাস্তা পাকা করার কাজে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে নিম্নমানের কংকর ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত কিছুদিন পূর্বে রায়পুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অভিযানের পরও ঠিকাদার অত্যান্ত নিম্নমানের ইট দিয়ে কাজ করছেন বলে জানান ওই এলাকার সাধারন জনগন।

বুধবার (২৬ আগষ্ট)-সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কেরোয়া ইউনিয়নের লুধুয়া গ্রামে ওয়াজউদ্দীনের পুলে সংলগ্ন রাস্তা দিয়ে পানপাড়া বাজারে গিয়ে শেষ হয়েছে রাস্তাটি। উক্ত রাস্ততাটি এক সসময় খালের পাড় ঘেষে কাঁচা রাস্তা করা ছিল।

বর্তমানে রাস্তাটি পাকা ও পিচ করার কাজ করছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। ৬৪ লাখ ৮২ হাজার ৬৩২ টাকা ব্যায়ে ৮’শ মিটারের এই রাস্ততার কাজ টেন্ডার পক্রিয়ায় বরাদ্ধ পান লক্ষ্মীপুর সদরের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স রিয়া এন্টার প্রাইজ।

সিডিউল অনুযায়ী কাজটি ২০১৯ সালের ৪ ঠা ডিসেম্বর শুরু হয়ে চলতি বছরের ১০ জুন তারিখে শেষ করার কথা ছিল। কিন্তুু ওই প্রতিষ্ঠান থেকে কাজটি কিনে নিয়ে এখন কাঁচা মাটি উঠিয়ে নতুনভাবে পাকা কাজ শুরু করেছেন রায়পুরের আমির হোসেন এন্ড সন্সের মালিক ঠিকাদার মো.আমির হোসেন। এখন খোয়া বিছানোর কাজ চলছে। এদিকে গত কয়েকদিন আগে রাস্তাটি সংস্কারে তার পাশের খাল থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু তুলে সেই রাস্তায় ফেলায় ও নিম্নমানের ইট ব্যবহার করে। স্হানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগের বিত্তিতে ইউএনও এ সংস্কারকাজ বন্ধ করে দেন এবং ঠিকাদারকে সতর্ক করে দিয়েছেন।

এদিকে এই অনিয়মের ব্যাপারে জানতে চাইলে কেরোয়া ইউপির লুধুয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. জিল্লুর রহমান ও হুমায়ুন কবির জানান, রাস্তা নির্মাণের জন্য যে মানের ইট ও বালু দেওয়ার কথা ছিল ঠিকাদার তা দিচ্ছেন না। ফলে বৃষ্টির কারনে-রাস্তাটি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে বলে একাধিক লোকজন জানান। সূত্র আরো জানায় এই ঠিকাদার ও তার ছেলের করা প্রতিটি রাস্তার কাজেই অনিয়ম রয়েছে।

এব্যপারে ঠিকাদার আমির হোসেন ও তার ছেলে মো: ফারুখেরর সাথে যোগাযোগ করলে তারা জানান, অন্য ঠিকাদারের কাছ থেকে কিনে কাঁচা রাস্তা পাকা করার কাজ করছি। বৃষ্টির কারনে কাজ বন্ধ আছে। কোন কিছুর জানা থাকলে ইন্জিনিয়ারের সাথে কথা বলেন।

রায়পুর এলজিইডির উপজেলা সিনিয়র প্রকৌশলী তাজল ইসলাম জানান, বর্তমানে যে ইট দিয়ে কাজ হচ্ছে তার মান খুব খারাপ নয়। রাস্তাটি যাতে ভালোভাবে নির্মাণ করা যায় সে ব্যাপারে ঠিকাদারকে বলে দেওয়া হয়েছে। বৃষ্টির কারনে কাজ বন্ধ রয়েছে।