রায়পুরে নতুন করে করোনা শনাক্ত ৯ জন মোট ৩১ জন

নুরুল আমিন দুলাল ভূঁইয়া, লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে প্রথম ১৩ বছরের এক শিশুর করোনায় আক্রান্তের সংস্পর্শে এসে নতুন করে আক্রান্ততের সংখ্যা বাড়তেই থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। নতুন আক্রান্ত সবাই রায়পুরের উপজেলার বাসিন্দা। এদের মধ্য্যে একজন জনপ্রতিনিধি রায়পুর উপজেলার ভাইসচেয়ারম্যান, ৪ রায়পুর উপজেলা স্বাস্হ কমপ্লেক্সের ডাক্তার, ২ জন নার্স, ও মধুপুরে একজন শনাক্ত হয়েছে।

ৎএ নিয়ে রায়পুরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩১ জনে। রায়পুরে গত দু’দিনে সর্বোচ্চ আরো ৯ জন করোনায় (কোভিড-১৯) আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। রবুবার (১৭মে) এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাকির হোসেন। তিনি জানান, জ্বর, সর্দি ও কাশি খবর জানতে পেরে গত ২ মে রাখালিয়া গ্রামের প্রথম করোনা আক্রান্ত ওই শিশুর নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রাম বিআইটিআইডি হাসপাতালে পরিক্ষা হয়। এই কারনে প্রায় ৩২ টি পরিবারকে লকডাউন রাখা হয়। রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জাকির হোসেন জানান, শনাক্ত হওয়া সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাড়িতে কোয়ারেন্টিনে ও আইসোলেনে থাকতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত- করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে গত ১৩ এপ্রিল থেকে লক্ষ্মীপুর জেলায় অনির্দিষ্টকালের জন্য লকডাউন ঘোষণা করা হলেও রায়পুরের ব্যাবসায়ী সহ বিপুল সংখ্যক লোকজন তা মানছে না। এ জন্য আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন বেড়েই চলেছে।তাই জেলার মধ্যে রায়পুরকে ঝুঁকিপূর্ণ ও হটস্পষ্ট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সংক্রমণ এড়াতে গত মঙ্গলবার ফের দোকান ও শপিংমল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিলেও গত চার দিনেও রাস্তাঘাট ও হাটবাজারে মানুষের উপস্থিতি কমেনি।

প্রতিদিনই কারণে-অকারণে মানুষ ঘরের বাইরে বের হচ্ছে। যদিও প্রশাসন সার্বিক চেষ্টা-তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে। এতে সুশীল সমাজের দাবি, প্রশাসন আরও কঠোর না হলে মানুষকে বাইরে বের হওয়া থেকে আটকানো যাবে না। সংক্রমণ ঠেকাতে না পারলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে বলেও মনে করেন তার।