রায়পুরায় ছাত্রলীগের সভাপতির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে ৯৯৯ কল ভিকটিম উদ্ধার থানায় মামলা

হারুনুর রশিদ, রায়পুরা (নরসিংদী) প্রতিনিধি : নরসিংদী রায়পুরা দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুল হক চৌধুরী শাকিল এর বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে রায়পুরা থানার মামলা নং ৩৫(২৩)২০। ভিকটিম নিজে বাদী হয়ে মামলার একমাত্র আসামি ছাত্রলীগের সভাপতি আসাদুল হক চৌধুরী শাকিল এর বিরুদ্ধে এ ধর্ষণের অভিযোগ করেন। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ১১ ঘটিকায় রায়পুরা উপজেলার রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু অডিটোরিয়ামে ।

স্থানিয় এলাকাবাসী পুলিশ ও তার পিতা( নূরুল হক) জানান ৯৯৯ কল পেয়ে রায়পুরা থানার সেকেন্ড অফিসার দেব দুলাল ঘটনারস্থল থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এসময় অভিযুক্ত শাকিল কৌশলে পালিয়ে যায়। ধর্ষিতাকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য নর্সিংদি সিভিল সার্জন কার্যালয় প্রেরণ করা হয়েছে। জানাযায় ৬ মাস ধরে ভিকটিমের সাথে শাকিলের সম্পর্ক গত বৃহস্পতিবার বিকেল চার ঘটিকায় ভিকটিমকে ফোন করে অডিটোরিয়ামে আসতে বলে শাকিল, পরে রাতে ভিকটিম আসলে অডিটোরিয়ামে তৃতীয় তলার কক্ষে নিয়ে ভিকটিমকে কুকের সাথে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাওয়ান শাকিল, পরে ভিকটিম অচেতন হয়ে পড়ে, ভিকটিমের জ্ঞান ফিরলে সে বুঝতে পারে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে, এসময় শাকিল এর সাথে ভিকটিমের দস্তাদস্তি হয় পরে শাকিল ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে চাইলে ভিকটিমের আত্মচিৎকারে এলাকার সাধারণ লোকজন অডিটোরিয়ামের নিচে এসে ঝড়ো হয়। পরে রায়পুরা থানা পুলিশ 999 এই খবর পেয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করে রায়পুরা থানার হেফাজতে নিয়ে আসে। ধর্ষক শাকিল উপজেলার পাড়াতলী কলিমুদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুল হক চৌধুরীর ছেলে। এবং ধর্ষিতার ছদ্মনাম (নুপুর) একই উপজেলার অলিপুরা ইউনিয়নের নবিয়াবাদ গ্রামের মেয়ে ।

এ ব্যাপারে রায়পুরা থানার ওসি মহসিনুল কাদির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন শাকিলের বিরুদ্ধে থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করা হয়েছে, আসামি কে ধরার প্রক্রিয়া চলছে।