রাণীনগরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষর জাল করে নতুন ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ

সুকুমল কুমার প্রামানিক, রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার গহেলাপুর এনএম উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষর জাল ও সরকারি বিধি অমান্য করে নতুন ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠেছে ওই বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতির বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড রাজশাহীর বিদ্যালয় পরিদর্শক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, রাণীনগর উপজেলার গহেলাপুর এনএম উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ চলতি বছরের ১৫ মে শেষ হয়েছে।

করোনা ভাইরাস, সাধারণ ছুটি ও লকডাউনের কারনে গত ২৩ মার্চ রাজশাহী মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড থেকে পত্রের মাধ্যমে ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচন সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেন। ফলে নতুন কোন কমিটি গঠন হয়নি। পরবর্তীতে গত ১০ জুন নতুন কমিটি গঠনের জন্য শিক্ষা বোর্ড থেকে নির্দেশনা আসলে গত ২৩ জুলাই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান স্বপন এডহক কমিটি গঠনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড রাজশাহীতে আবেদনপত্র জমা দেন।

কিন্তু পরে তিনি বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পারেন বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি নাজিম উদ্দীন আহম্মেদ নতুন ম্যানেজিং কমিটি গঠন করেছেন। তিনি আরো জানতে পারেন ওই নতুন ম্যানেজিং কমিটি গঠনের জন্য সরকারি বিধি অমান্য ও তার স্বাক্ষর জাল করে শিক্ষাবোর্ডে জমা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ওই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান স্বপন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড রাজশাহীর বিদ্যালয় পরিদর্শক এবং গত ১৬ আগষ্ট রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

উপজেলার গহেলাপুর এনএম উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান স্বপন জানান, বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি নাজিম উদ্দীন আহম্মেদ আমার স্বাক্ষর জাল করে শিক্ষাবোর্ডে আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন। এ ঘটনায় আমি বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। এছাড়া তার স্বাক্ষর জাল করে এমন ঘটনা ঘটনানোর জন্য দ্রুত তদন্ত করে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।

এ ব্যাপারে গহেলাপুর এনএম উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি নাজিম উদ্দীন আহম্মেদ তার সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিজে স্বাক্ষর করেছেন। আমি স্বাক্ষর জাল করিনি। শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান স্বপন “প্রধান শিক্ষক” হওয়ার জন্য আমাকে প্রস্তাব দিলে আমি তা প্রত্যাখ্যান করেছি। এরপর থেকে তিনি আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আল মামুন বলেন, বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। সুকুমল কুমার প্রামানিক রাণীনগর উপজেলা প্রতিনিধি, নওগাঁ।