রাণীনগরে বৃষ্টি হলেই অডিটোরিয়ামের সামনে রাস্তায় জলাবদ্ধতা

সুকুমল কুমার প্রামানিক, রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগরে বৃষ্টি হলেই জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামের সামনে রাস্তায় জলাবদ্ধতা। পানি নিষ্কাশনের নেই কোন পদক্ষেপ। এছাড়া রাস্তার ধারে ড্রেন থাকলেও ড্রেনে জমে থাকা ময়লা আবর্জনায় ড্রেনের বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। তবুও ড্রেন পরিষ্কার ও খানা খন্দেভরা রাস্তাটি সংস্কার এবং জলাবদ্ধতার পানি নিস্কাশনের জন্য কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যানবাহন চালক ও পথচারীদের। যেন দেখার কেউ নেই। জানা গেছে, রাণীনগর উপজেলার সদরের বটতলী থেকে রাণীনগর থানা ও সদরের বাজারের প্রবেশের রাস্তায় জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামের সামনে পাকা রাস্তা খানা খন্দে ভরা।

এর কারনে একটু বৃষ্টি হলেই সেখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। রাস্তার ধার দিয়ে পানি নিস্কাশনের জন্য ড্রেন রয়েছে। কিন্তু ড্রেনের মধ্যে ময়লা আবর্জনায় ভরে থাকার কারনে ড্রেনের বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। ড্রেনের এমন দশা হলেও ড্রেন পরিষ্কার ও খানা খন্দেভরা রাস্তা সংস্কার করে রাস্তার জলাবদ্ধতার পানি নিস্কাশনের কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। এছাড়া জলবদ্ধতা ওই স্থানের পাশের রাণীনগর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও রাণীনগর মডেল-১ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। করোনা ভাইরাসের আগে স্কুল চলাকালীন সময়ে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদেরও দুর্ভোগ পহাতে হয়েছে। তাছা ওই স্থানের পার্শ্বে সদর ইউনিয়ন পরিষদ।

ইউনিয়ন পরিষদে সেবা নিতে আসা মানুষদেরও দুর্ভোগ পহাতে হচ্ছে। গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে সদরের বটতলী থেকে রাণীনগর থানা ও বাজারের প্রবেশের রাস্তার জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামের সামনে খানাখন্দে ভরা রাস্তায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তায় জলাবদ্ধতার কারনে যানবাহন চালক ও পথচারীদের নানান সমস্যার মুখে পরতে হয়। এতে করে চরম দুর্ভোগে পড়েছে যানবাহন চালক, পথচারীরা। দ্রুত খানা খন্দেভরা রাস্তাটি সংস্কার করে জলবদ্ধতার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ও ড্রেন পরিষ্কার করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন সচেতন মহল। স্থানীয় পথচারী জুলফিকার আলী ভুট্টু, এমরান হোসেন, হুমায়ন কবিরসহ অনেকেই জানান, এই জলাবদ্ধতার কারনে আমরা অনেক সমস্যার মুখে পরি।

রাস্তা দিয়ে সব সময় যানবাহন চলাচল করে। এতে রাস্তায় পানি জমে থাকলে আমরা যখন রাস্তা দিয়ে যাওয়ার  সময় রাস্তার পানি ছিটকে আমাদের জামা কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। এমনকি যেখানে যাবার জন্য বের হই জামা কাপর নষ্ট হওয়ার কারনে সেখানে হয়তো আর যাওয়াই হয়না। এছাড়া রাস্তার ধারের ড্রেনের ভিতরে তো ময়লা আবর্জনায় ড্রেনের বেহাল দশা হয়েছে। এই সমস্যা গুলো কেউ দেখেও দেখে না। দ্রুত এই সমস্য সমাধানের জন্য উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের আসু দৃষ্টি দেওয়া প্রায়োজন বলে মনে করছেন তারা। ভ্যান চালক সিরাজ ইসলাম, আলম, এমদাদুলসহ অনেকেই জানান, এই রাস্তা দিয়ে আমরা সব সময় গাড়ি চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে থাকি।

একটু বৃষ্টি হলেই অডিটোরিয়ামের সামনে রাস্তা খানা খন্দেভরার কারনে সেখানে জলবদ্ধতা হয়। অনেক সময় পানির কারণে রাস্তা দেখতে না পাওয়ায় দুঘর্টনা ঘটারও আশঙ্কা থাকে। দ্রুত এই সমস্য সমাধানের করার দাবি জানিয়েছেন তারা। এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) শাইদুর রহমান মিঞা বলেন, খানা খন্দে ভরা ওই স্থানে রাস্তাটি দ্রুত মেরামতের জন্য উদ্দ্যেগ গ্রহন করা হবে। এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আল মামুন বলেন, দ্রুত এই সমস্যা সমাধান করা জন্য ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।