রাণীনগরে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর চাল নিয়ে মারপিটের ঘটনায় তদন্ত

সুকুমল কুমার প্রামানিক, রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি:  নওগাঁর রাণীনগরে হত-দরিদ্রদের জন্য সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা কেজি দরের চাল নিয়ে মারপিটে ডিলারসহ উভয় পক্ষের পাঁচ জন আহত হওয়ার ঘটনায় তদন্ত করেছে প্রশাসন। রবিবার এ তদন্ত কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা নওগাঁ জেলা প্রশাসকের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ওয়াশীমুল বারী ঘটনাস্থল রাণীনগর উপজেলার দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামে পরিদর্শন শেষে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর আনুমানিক ৬০ কেজি চাল জব্দ করে।

তদন্তের সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নওগাঁ জেলা প্রশাসকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এএসএন আবু সুফিয়ান, রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আল মামুন, উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম সরকার ও গুদাম কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম লিটন। জানা যায়, রাণীনগর উপজেলার খট্টেশ্বর সদর ইউনিয়নের হত-দরিদ্রদের জন্য সরকারের খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ১০ টাকা কেজি দরের চালের ডিলার এসএম শরিফ উদ্দিন গত ৩১ মে এলাকার বেশ কিছু কার্ড ধারীদের নিকট চাল বিতরণ করেন। এ সময় উপজেলা সদরের দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের কার্ডধারী সুবিধাভোগী আব্দুর রউফ রতন (৪৪) ও তার ভাই আশরাফুল ইসলাম মিঠু (৪৭) কে দুই কার্ডের ৬০ কেজির পরির্বতে পাঁচ মন চাল সরবরাহ করে।

এরপর থেকে ডিলার অতিরিক্ত প্রতি কেজি চালের দাম ৩০ টাকা হিসেবে নিবেন এমনটি জানালে মিঠু ও রতন ১০ টাকা কেজি দিতে চান। কিন্তু ডিলার শরিফ উদ্দিনকে ৩০ টাকা কেজি না দিলে চাল ফেরত নিবেন জানালে উভয় পক্ষের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেয়। এরই জের ধরে গত শনিবার সকালে দক্ষিণ রাজাপুর মোড়ে চাল নিয়ে দ্বন্দ্ব বাধে। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারপিটের ঘটনা ঘটে। এতে ডিলারসহ উভয় পক্ষের পাঁচ জন আহত হয়। এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা নওগাঁ জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ওয়াশীমুল বারী মুঠোফোনে বলেন, খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চাল নিয়ে মারপিট ও আহতের ঘটনায় নওগাঁ জেলা প্রশাসকের নির্দেশে আমি তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছি।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে আনুমানিক ৬০ কেজি চাল জব্দ করা হয়েছে। দ্রুত তদন্ত কার্যক্রম শেষ করে জেলা প্রশাসকের নিকট তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে। এ ব্যাপারে নওগাঁ জেলা প্রশাসক হারুন অর রশিদ এর মুঠোফোন বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।