রাজিবপুরে অবৈধভাবে বিদ্যুতে খুঁটি সরিয়ে রাস্তায় স্থাপন

রফিকুল ইসলাম, রাজিবপুর, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : কুড়িগ্রামের রাজিবপুর উপজেলার জাউনিয়ারচর গড়াইমারী এলাকায় অবৈধভাবে বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে রাস্তায় স্থানান্তরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জামালপুর পল্লী বিদ্যুতের ষ্টীমেট অনুযায়ী ২০০৩ সালে বিদ্যুতায়নের আওতায় আসে এলাকাটি। চলমান বিদ্যুৎ লাইনের একটি বৈদ্যুতিক খুঁটি অবৈধভবে বাড়ী থেকে সরিয়ে জনবহুল রাস্তার উপর স্থাপন করেছেন উক্ত বাড়ীর মালিক মনির উদ্দিন মাষ্টার, এতে ভোগান্তিতে পড়েছে স্থানীয় জনগণ।

জানা গেছে, পল্লী বিদ্যুতের অফিসকে না জানিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এসব কাজ করে থাকে বিদ্যুৎ লাইনের ফোরম্যান (১) নাসির উদ্দিন, পিতা-সুমন মিয়া, (২) সজিব মিয়া, পিতা-মেরু শেখসহ বেশ কয়েক জন কর্মচারী। এদের বাড়ী শেরপুর জেলার কর্ণঝড়া এলাকায়। এসব কর্মচারীরা পল্লী বিদ্যুতের লাইন সম্প্রসারণ ঠিকানাদারদের কর্মচারী। সাধারণত গ্রাহকদের বৈদ্যুতিক মিটার ও খুঁটি সরিয়ে আয় করে চলছে কয়েক বছর যাবৎ। ঠিকাদার ও কিছু পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছত্রছায়ায় অবৈধ কর্মকান্ড চালিয়ে আয় করছে লক্ষ লক্ষ টাকা। এ বিষয়ে অভিযুক্ত নাসির উদ্দিনের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, খুঁটি সরানো ছোট খাটো কাজ, আমরা বড় বড় কাজ করে দেই।

ইনকাম যা আসে সেটা বিদ্যুৎ অফিসও খায়, আমরাও খাই। তবে পল্লী বিদ্যুতে চাকুরীরত কে বা কারা জরিত আছে এমন প্রশ্নে নাসির কারই নাম প্রকাশ করে নাই। অভিযুক্ত বাড়ীর মালিক মনির উদ্দিন মাষ্টার জানিয়েছেন, আমার ভায়রা ওয়াদুদকে খুঁটি সরানোর কথা বলি। ওয়াদুদ ও নাসিরসহ ৬-৭ জন এসে আমার বাড়ীর খুঁটি সরিয়ে দিয়েছে। আমি সরাই নাই। ওয়াদুদ মুলত রৌমারী উপজেলার টাপুর চর গ্রামের বাসিন্দা। জানা গেছে, সে দীর্ঘদিন যাবৎ বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগ-সাজোসে টাকার বিনিময়ে বিদ্যুতের বিভিন্ন প্রকার কাজ করে দেয়।

রাজিবপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে কর্মরত জুনিয়ার ইঞ্জিনিয়ার নাসির উদ্দিনের নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, অফিসিয়াল মেনুয়ালে বিদ্যুতের খুঁটি সরানোর এখতিয়ার কারোই নাই। না জানিয়ে খুঁটি সরানো হয়েছে। বিষয়টি আমি তদন্ত করে জামালপুর রিপোর্ট পাঠিয়েছি। জিএম স্যারের নির্দেশে (১৫/০৬/২০২০) মনির উদ্দিন মাষ্টারের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। জামালপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের জিএম আলমগীর হোসেন জানান, এ বিষয়ে তদন্ত করে, আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।