রাজশাহীতে অনশনে থাকা শ্রমিকদের অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন

খুলনা অঞ্চলের নয়টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকরা আমরণ অনশন করছেন। মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন ও নিয়মিত মজুরি পরিশোধসহ ১১ দফা  দাবিতে আমরণ অনশনের দ্বিতীয় দিনে দুই শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

শীতের তীব্রতা উপেক্ষা করে পাটকল শ্রমিকরা তিনদিন থেকে মিলগেটে অবস্থান নিয়েছেন। এরইমধ্যে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) অসুস্থ এক শ্রমিককে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে আরও দুইজনকে। এরপরও তাদের ১১ দফা দাবিতে তাদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।

অসুস্থ হয়ে পড়া শ্রমিকদের একজনের নাম আব্দুল গফুর। তিনি রাজশাহী জুট মিলের মেকানিক্যাল বিভাগে চাকরি করেন। হঠাৎ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে বৃহস্পতিবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে সহকর্মীরা তাকে রামেক হাসপাতালে পাঠায়।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ-ননসিবিএ সংগ্রাম পরিষদের ডাকা পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে খুলনার ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, খালিশপুর, দৌলতপুর, স্টার, ইস্টার্ন, আলিম এবং যশোরের জেজেআই ও কার্পেটিং স্ব স্ব পাটকলের উৎপাদন বন্ধ রেখে মিলের সামনের রাস্তায় এ কর্মসূচি পালন করছেন প্রায় সহস্রাধিক শ্রমিক। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত মৃত্যু হলেও তারা কর্মসূচি ছেড়ে যাবে না বলে জানান শ্রমিকরা

এদিকে ঘোষিত ১১ দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনশন কর্মসূচি চলবে বলে আবারও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন রাজশাহীর পাটকল শ্রমিকরা। শ্রমিকরা বলছেন, তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। এখন সব দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফেরা তাদের পক্ষে আর সম্ভব নয়। এ কারণে তারা প্রয়োজনে জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত মিলগেটে অনশন চালিয়ে যাবেন।

বৃহস্পতিবার ঢাকায় তাদের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আবারও সরকারপক্ষের বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।