যুব সমাজকে ধংসাত্মক কাজ থেকে বিরত রাখতে হলে তাসাউফ এর চর্চা করতে হবে: এস.এম হুজ্জাতুল্লাহ্ নক্সবন্দী

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার: “বর্তমান এই ফেৎনা-ফ্যাসাদের যুগে দেশের যুব সমাজকে ধর্মীয় উগ্রবাদীতায় উৎসাহিত করে কিছু দল বা মতাদর্শের মুরব্বিরা যুব সমাজের একটি অংশকে বিশেষত শিক্ষিত যুবকদেরকে জঙ্গীবাদের দিকে ধাবিত করছে।

অন্য দিকে পারিবারিক বন্ধন ও ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান থেকে বিরত রেখে যুব সমাজের একটি অংশকে মাদক, ইভটিজিং সহ নানাহ ক্ষতিকর কাজে উৎসাহিত করছে। এ থেকে পরিত্রান পাওয়ার একমাত্র পথ হচ্ছে তাসাউফ বা সূফিইজমের চর্চা।

” চান্দ্রা দরবার শরীফে আঞ্জুমানে এশায়াতে ছাইফীয়া মুজাদ্দেদীয়া বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির বার্ষিক কর্মী সম্মেলন-২০২০ এর প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন চান্দ্রা দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীল পীর ড. মাওলানা এস.এম. হুজ্জাতুল্লাহ।

১৪ই মার্চ শনিবার সকাল ১০টায় দরবার শরীফের অডিটোরিয়ামে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

আঞ্জুমানে এশায়াতে ছাইফীয়া কেন্দ্রীয় কমিটির নায়েবে আমীর ও চাঁদপুর জেলা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব এম.এ বারী খান এর সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন

কেন্দ্রীয় কমিটির সেক্রেটারী জেনারেল এ্যাডভোকেট ড. মোঃ কামরুল হাসান, ফরিদগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ খলিলুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুর রহমান, ডাঃ আলী আকবর মিয়া, রাজরাজেশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হযরত আলী বেপারী।

বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন মোঃ গোলাম হোসেন টিটো, মাওলানা মোঃ ফজলুল হক, মাওলানা হেলাল উদ্দিন নোমানী, মাওলানা কবির ওসমানী, মাওলানা আনোয়ার হোসেন প্রমূখ।

আলহাজ্ব মোঃ ফিরোজ আলমের তত্ত্বাবধানে, মাওলনা মোঃ ওলি উল্যাহর উপস্থাপনায়, আব্দুল আজিজ ও আব্দুর রহমান এর সহযোগিতায় দিনব্যাপী উক্ত সম্মেলনে সারা দেশের ৬০টি এবং বিদেশের ৭টি সহ মোট ৬৭টি সংগঠনিক কমিটির নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

বক্তাগণ তাদের বক্তব্যে ইসলামে সুন্নীয়তের ঝান্ডা সম্মুন্নত রাখতে চান্দ্রা দরবার শরীফের সঠিক ভূমিকার প্রশংসা করেন এবং সুফিইজমের চর্চা অব্যাহত বেগবান করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।