যমুনায় রেল সেতু নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় বাড়লো ৭ হাজার কোটি টাকা

যমুনা নদীতে আলাদা রেল সেতু নির্মাণ প্রকল্পে ব্যয় বাড়লো সাত হাজার কোটি টাকা। ফলে, সংশোধিত ব্যয় দাঁড়ালো পৌনে ১৭ হাজার কোটিতে। আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) এটিসহ মোট ৮ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।
দেশের উত্তরাঞ্চলের সাথে রাজধানী ঢাকার যোগাযোগের লাইফলাইন বঙ্গবন্ধু সেতু। যা চালু হওয়ার পর বদলে গেছে এক সময়ের মঙ্গাপীড়িত এলাকার অর্থনীতিও। একই সঙ্গে, রেল এবং সড়ক যোগাযোগের সুবিধা নিয়ে যাত্রা শুরু করা সেতুটি ছোট খাটো সমস্যায় পড়ে কয়েক বছর বাদেই। তাই, চাপ কমাতে, সিদ্ধান্ত হয় রেললাইন অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার। সে ধারাবাহিকতায়, প্রকল্প নেয়া হয় তিনশ মিটার উজানে নতুন সেতু নির্মাণে।
২০১৬ সালে পৌনে দশ হাজার কোটি টাকা খরচ ধরে এগুনো হয় বাস্তবায়নের পথে। কিন্তু, নতুন করে সম্ভাব্যতা যাচাই করে আরো ৭ হাজার কোটি খরচ বাড়িয়ে দেয় জাইকা। এর ফলে, নতুন ব্যয় দাঁড়ালো পৌনে ১৭ হাজার কোটিতে। যার বড় একটা অংশ বহন করতে হবে সরকারকে।
এর আগে, প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় ২০২৫ সাল ধরা হলেও নতুন সংশোধনে কমিয়ে আনা হয় আরো দুই বছর। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অধীন অন্যতম বড় এই প্রকল্পে ৭২ শতাংশই ঋণ হিসেবে দিচ্ছে জাইকা।
এটি ছাড়াও, পাবনা, কুড়িগ্রাম ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার নদী তীর সংরক্ষণে দেড় হাজার কোটি টাকার বেশি খরচের অনুমোদন দেয় একনেক।