মোহনপুরে বসত বাড়ির দরজা ভেঙ্গে আক্রমণ ৩ নারীসহ আহত ৫; সাংবাদিককে অনৈতিক সুবিধা দেয়ার প্রস্তাব

নুর কুতুবুল আলম, বাগমারা ( রাজশাহী) প্রতিনিধি: রাজশাহীর মোহনপুরে বসত বাড়ির দরজা ভেঙ্গে পাঁচ জনকে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রায়ঘাটি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পারিলাডাঙ্গা গ্রামে। মোহনপুর থানার লিখিত অভিযোযোগ, ঘটনা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পূর্ব শত্রুতার জেরধরে শুক্রবার রাত আট ঘটিকার দিকে মৃত হরিপদ ছেলে জয়হরির বসত বাড়ির দু’টি কাঠের দরজা ভেঙ্গে আক্রমণ করে প্রভাবশালী প্রতিপক্ষ একই গ্রামের লবাকান্ত মন্ডলের ছেলে রবিন মন্ডল (৩৫), কৃষ্ণপদ মন্ডল (২৮),বিষ্ণুপদ মন্ডল (৪৫), গোবিন্দ মন্ডল (৪৮) এবং তাদের সহযোগী কুকড়া মন্ডলের ছেলে পরিতোষ মন্ডল (৪৬), বিষ্ণুপদ মন্ডলের ছেলে সুমন মন্ডল (১৮), শান্তর ছেলে মিশু মন্ডল (১৭) সহ তাদের সাঙ্গ পাঙ্গরা হামলা,ভাঙ্চুর,মারামারি,লুটতরাজে অংশ গ্রহণ করে।

আহতরা হলেন পারিলাডাঙ্গা উত্তরপাড়ার জয়হরির স্ত্রী আলোবতী (৪০), ছেলে রতন কুমার (২৬), মেয়ে অঞ্জনা রানী (২৬), অপর মহিলা আল্পনা রানী (৩০), রতন কুমারের কাকাত ভাই মোহন (২০)। পারিলাডাঙ্গা গ্রামের বাসীন্দা ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম সংবাদকর্মীদের জানান, হামলাকারীরা যেই হোক, বসতবাড়ির দু’টি কাঠের দরজা ভেঙ্গে আক্রমণ খুবই দুঃখ জনক।

সূত্র জানায়, জয়হরির পরিবারকে প্রায় দশ বছরধরে এক ঘরে করে রাখা হয়েছে। রাজশাহী জেলা পুলিশের এক উধর্źতন পুলিশ কর্মকর্তার মধ্যস্থতায় মোহনপুর থানায় বসে তাঁরা আপোষ নিষ্পত্তি হলেও বিগত দুর্গাপূজা এবং একটি হরিবাসরে জয়হরির পরিবারকে অংশ গ্রহণ করতে দেয়। তারপর থেকে আবারও এক ঘরে করে রাখা হয় বলে অভিযোগ করেন জয়হরি। শ্রী জয়হরি জােিয়ছেন, লবাকান্তের প্রভাব, প্রতিপত্তিশালী ছেলেরা মিথ্যা ঠুনকো অজুহাত খাড়া করে আমার বাড়ির দরজা ভেঙ্গে ছেলে রতন কুমারকে দেশীয় অস্ত্র লাঠি, দা, শাবল দিয়ে মারধর শুরু করে । রতন রাতে খাবার খাচ্ছিল। রতনের স্ত্রীসহ বাড়ির অন্য সদস্যরা রতনকে বাঁচাতে চাইলে তাদেরও হামলার শিকার হতে হয়।

গ্রামের কয়েকজন হিন্দু-মুসলমান প্রতিবেশীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, জয়হরির ছেলেরা অত্যন্ত ভদ্র ও নিরীহ। সর্বহারা কায়দায় এমন ভাবে আক্রমণ করা হয়েছে যে, কোন কিছু বুঝে ওঠার পূর্বে তাঁরা মারধর করে সটকে পড়ে। ঠান্ডা মাথায় আঘাত করা হয়েছে। জয়হরির মেয়ে অঞ্জনা রানী জানান, পরিবারে কয়েকজন নারীকে মারপিট, শ্লীলতাহানি করে দুস্কৃতকারীরা। ছেঁড়া শাড়ি, ব্লাউজ সংবাদকর্মীদের দেখান তিনি। গৃহকর্তা জয়হরি নয়জনকে বিবাদী করে মোহনপুর ধানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ভিকটিমের স্বজনরা ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ যাওয়ার কথা নিশ্চিত করেন। ভিকটিমের অপর কলেজ পড়–য়া ছেলে চৈতন্য হাওলাদার বলেন, ৯৯৯ এ ফোন দিলে এস আই আব্দুর রাজ্জাক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

লবাকান্তের প্রভাবশালী ছেলেরা একটি পক্ষকে দিয়ে এই প্রতিবেদককে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন এবং গণমাধ্যমে প্রচার না করার জন্য টাকা প্রদানের কথা বলে প্রলুব্ধ করতে থাকেন। ( অডিও ক্লিপ আছে)। মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাক আহম্মেদের নিকট মোবাইলফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি এখন পর্যন্ত কোন লিখিত অভিযোগ পায়নি। করোনা ভাইরাস নিয়ে ব্যস্ততা চলছে। এখন পারিবারিক ঘটনাগুলিকে সেভাবে দেখা সম্ভব হচ্ছে না। অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিবো।