মোহনগঞ্জে কিশোরীর মৃত্যু, আত্মহত্যা নাকি হত্যা এ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের ধুম্রজাল

নেত্রকোণার মোহনগঞ্জ উপজেলার পৌর শহরে হাসপাতাল রোডে মারুফা আক্তার নামে এক কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (৯মে) বিকালে বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মাহবুব মোর্শেদ কাঞ্চনের মোহনগঞ্জ উপজেলা হাসপাতাল রোডের বাসায় এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। নিহত মারুফা আক্তার বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চরসিংধা গ্রামের মৃত আলী আকবরের মেয়ে।

তবে এটি আত্মহত্যা নাকি হত্যা এ নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের ধুম্রজাল। এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা সন্ধ্যা রানী রায় তার ফেইজবুক ফেইজে পোষ্ট করেছেন, জেলার বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ মাহবুব মুর্শেদ কাঞ্চন কাজের মেয়ে মারুফা আক্তারকে ধর্ষণের চেষ্টা করে না ফেরে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মেরে ফেলেন বলে শনিবার রাতেই তার ব্যক্তিগত ফেইজে লিখেছেন। নেত্রকোণায় এক চেয়ারম্যানের বাসার কিশোরী গৃহকর্মীর লাশ নিজেই উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত কিশোরী মারুফা আক্তার (১৪) বারহাট্টা উপজেলার সিংধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের বাড়ির পাশে আলী আকবরের মেয়ে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত দুই বছর পূর্বে মারুফা আক্তার চেয়ারম্যানের বাসায় কাজ করতে আসে। কিশোরীর মা চেয়ারম্যানের ছেলে শাহ কিবরিয়া মাহবুব তন্ময় ঢাকাস্থ বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করেন। এদিকে এলাকায় বিষয়টি নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। এর আগেও বিভিন্ন অনিয়মের কারণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে গত ১৯নভেম্বর ২০১৯ তারিখে লিখিত চিঠির মাধ্যমে সাময়িক বরখাস্ত করে এই চেয়ারম্যানকে।

মোহনগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবদুল আহাদ খান জানান, চেয়ারম্যানের বাড়ির পিছনে বড়ই গাছে বিকালে পরিত্যক্ত কারেন্টের তার গলায় আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। পরে চেয়ারম্যান নিজেই উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোসণা করেন। আমরা লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। মেয়ের মাকে খবর দিয়েছি ঢাকা থেকে আসার জন্য।

ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মাহবুব মুর্শেদ কাঞ্চন নিজেই তার গৃহকর্মী মারুফা আক্তারকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছিল কিনা জানতে চাইলে মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ নুর মোঃ শামসুল আলম জানান, তিনি নিজেই নিয়ে এসেছিল আমরা পরীক্ষা করে তাকে মৃত পায়। এ ব্যাপারে বারহাট্টা উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মাহবুব মুর্শেদ কাঞ্চন এর সাথে যোগাযোগ চেষ্ঠা করা হলেও থাকে পাওয়া যায়নি।