মৃত কিশোরী জীবিত ফেরার ঘটনায় বিচারিক তদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের

গেল ৪ জুলাই নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকার ১৫ বছরের কিশোরী নিখোঁজ হয়। মেয়ের সন্ধান না পেয়ে ৬ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করেন কিশোরীর বাবা। পরে একই এলাকার রকিব, আবদুল্লাহ ও খলিলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। দুই দফা রিমান্ড শেষে তিন আসামি কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার স্বীকারোক্তি নেয়া হয়। এর দেড় মাস পর ওই কিশোরী বাড়ি ফিরলে পুলিশের তদন্ত ও রিমান্ড নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। নারায়ণগঞ্জে জীবিত কিশোরীকে মৃত দেখিয়ে ধর্ষণ ও হত্যায় স্বীকারোক্তি নেয়ার ঘটনা বিচারিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেস্টকে তদন্ত করে ৪ নভেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।