মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে অজ্ঞাত রোগে চাচী ও ভাতিজার মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলায় অজ্ঞাত রোগে আব্দুর রহমান(৩) ও ছামিয়া আক্তার (৩২) নামের চাচী ও ভাতিজার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি, উভয়ের শরীরে ছোপ ছোপ দাগ দেখা গেছে। তবে এঘটনার পরই এলাকায় করোনা ভাইরাস আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। তবে নিহতরা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি বলে প্রাথমিক ভাবে নিশ্চিত করেছে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা কামরুল হাসান পাটোয়ারী।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে,রবিবার দিবাগত রাত ২টায় উপজেলার যশলদিয়া এলাকায় মীর সোহেলের শিশু পুত্র আব্দুর রহমান মারা যায়, এর আগেরদিন শনিবার রাত ৮টায় মীর জুয়েলে স্ত্রী ছামিয়া আক্তার মারা যায়। তারা ২জন সম্পর্কে চাচী-ভাতিজা।
নিহত ছামিয়ার স্বামী মীর জুয়েল, শনিবার রাতে হঠাৎ ছামিয়ার শরীরে ব্যাথা অনুভব করলে স্থানীয় পল্লী চিকিৎকসকে জানাই, পল্লী চিকিৎসক এসে জ¦র হয়েছে বলে নিশ্চিত করে ঔষধ দিয়ে যায়। পরে তার হাত পায়ের আঙুল বাকা হতে শুরু করে ও দাত লেগে যায় একপর্যায় রাত ৮টায় মারা যায় ছামিয়া। রবিবার ভাতিজা আব্দুর রহমানেরও একই ভাবে মৃত্যু হয়।
এব্যপারে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা কামরুল হাসান পাটোয়ারী ঢাকা টাইমসকে জানান, ঘটনাস্থল উপস্থিত হয়ে নিহত রহমানের ছবি সংগ্রহ করা হয়েছে, নিহতের লক্ষণ দেখে করোনা ভাইরাস নিশ্চিত হওয়া যায়নি। বিশেষ টিমের পরিক্ষা শেষে বিষয়টি নিশ্চিত করা যাবে।
এদিকে ঘটনার পরই এলাকা করোনা ভাইরাস আতংক ছড়িয়ে পড়ছে। বিশেষ করে এলাকাটিতে পদ্মা সেতু ও যশলদিয়া পানি শোধনাগারে নির্মান কাজ চলমান থাকায় চীন সহ বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের উপস্থিতি রয়েছে।