মিঠাপুকুরে নারী যাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষনের চেষ্টা: ট্রাক চালক আটক

 আমিরুল কবির সুজন, মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের মিঠাপুকুরে ট্রাকে থাকা এক নারী যাত্রীকে অপহরন করে ধর্ষন চেষ্টায় সহায়তার অভিযোগে স্থানীয় জনতা এক ট্রাক চালককে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে দিযেছে। আটক ট্রাক চালকের নাম মনোয়ার হোসেন (৩৫)। সে মিঠাপুকুর উপজেলার নিঝাল গ্রামের শওকত মিয়ার ছেলে।  উপজেলার স্বপনমোড় নামক স্থানে এঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শি লোকজন সুত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রাকে করে ৮/৯ জন যাত্রী রংপুরের উদ্দেশে আসছিলেন। মাঝপথে ২/৩ জন যাত্রী তাদের গন্তব্যস্থল বগুড়ায় নেমে যায়। ১জন নারীসহ বাকি ৫ জন যাত্রী নিয়ে ওই ট্রাকটি বগুড়া থেকে রংপুর আসছিল।
ট্রাকের যাত্রী আশিকুর (৩০), মোন্নাত আলী (৪০), সাইদুল ইসলাম (২৮) ও আশিক (২৫) জানায়, রাত আনুমানিক ১১ টায় ট্রাকটি জায়গীর বাসষ্টান্ডে আসার পরে চালক হঠাৎ করে ট্রাকটি রানীপুকুর রোডে মোড় নিয়ে যেতে থাকে। ট্রাকের উপরে থাকা যাত্রীরা ট্রাকটিকে রাস্তা ভুল হয়েছে বলে থামাতে বললেও ট্রাক চালক কোন কর্ণপাত না করে ট্রাকটি দ্রুত গতিতে চালাতে থাকে। কিছুদূর যাওয়ার পরে “নাউয়ার মাল্লি” নামক নির্জন জায়গায় ট্রাকটি থামালে সেখানে ৩টি মোটরসাইকেল যোগে ৪ জন অপহরণকারী আসে। তাদের মধ্যে ১ জন অপহরণকারী ট্রাকটির উপরে থাকা ২১ বছর বয়সী মোরশেদা বেগম নামে এক গার্মেন্টস কর্মীকে টেনে হেচড়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এসময় ট্রাকের অন্য যাত্রীরা বাধা দেয়ার চেষ্টা করেলে অপহরণকারীরা নিজেদের র‌্যাব পরিচয় দিয়ে যাত্রীদের গুলি করার ভয় দেয়ায়।
এরপর চালক ট্রাকটি আবারও ঘুরে নিয়ে জায়গীর বাসষ্টান্ডের দিকে যাওয়ার সময় ট্রাকের যাত্রীদের চিৎকারে স্থানীয় জনসাধারণ চালকসহ ট্রাকটিকে মিঠাপুকুর উপজেলার নয়াপাড়া নামক স্থানে আটক করে। স্থানীয় জনতা ট্রাকের যাত্রীদের কাছ থেকে ঘটনার বিষয়ে জানতে পেরে ট্রাক চালককে চাপ সৃষ্টি করলে সে মোবাইল ফোনে অপহরণকারীদের সাথে যোগাযোগ করে। অপহরণকারীরা অবস্থা বেগতিক বুঝতে পেরে ওই নারীকে ছেড়ে দিয়ে তড়িঘড়ি পালিয়ে যায়। ভুক্তভোগী ওই নারী রাতের আঁধারে কোন ভাবে ঘটনাস্থলের পাশে থাকা পাইকান গ্রামে এসে স্থানীয় এক ব্যক্তির কাছে আশ্রয় নেয়। ওই ব্যক্তি ৯৯৯ কল করে বিষয়টি অবগত করে। এরই মধ্যে স্বপনমোড়ে স্থানীয় জনতার হাতে আটক থাকা ট্রাক চালককে অপহরণকারীরা ওই নারীকে ছেড়ে দিয়েছে বলে জানায়। এরপর পার্শ্ববর্তী পাইকান গ্রাম থেকে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ সাফায়েত তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।
ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম মিঠাপুকুর থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করলে রাত ১১.৩০ ঘটিকার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ভুক্তভোগী নারীসহ তার সঙ্গী ট্রাক যাত্রী শরিফুলকে হেফাজতে নেয় এবং ট্রাক চালক মনোয়ার হোসেনকে আটক করে মিঠাপুকুর থানায় নিয়ে যায়। অপহরণকারীর হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পাওয়া গার্মেন্টস কর্মী ওই নারী জানায়, ট্রাক চালকের সহযোগিতায় ৪জন ব্যক্তি তাকে অপহরণ করে পাশে থাকা একটি ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। এসময় মেয়েটি ৬মাষের অন্তরস্বত্তা বলে তাদেরকে মিনতি করতে থাকলে এবং ওই সময় একটি ফোন পেয়ে অপহরণকারীরা তাকে ছেড়ে দিয়ে তড়িঘড়ি পালিয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে জনমনে নানা জল্পনা-কল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।
অনেকেই মনে করছেন অপহরণকারীরা কারা ছিল সেটি আটক ট্রাক চালক জানেন। এমতাবস্থায় বিষয়টির সঠিক তদন্ত করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া না হলে অপরাধীরা অধরাই থেকে যাবে এবং ভবিষ্যতে আবারো এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটাবে বলে অনেকেই মনে করছেন। এ বিষয়ে মিঠাপুকুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাফর আলী বিশ্বাস জানান, পুলিশ পাঠিয়ে ট্রাক চালককে আটক করাসহ ভোক্তভোগী নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। ট্রাক চালক থানায় আটক আছে।
ভোক্তভোগী ওই নারীকে তার স্বজনের হেফাজতে দিয়ে রাত শেষ হলে থানায় আসতে বলা হয়েছে। তিনি এসআই আজাদ-এর সাথে এ বিষয়ে কথা বলতে বলেন। এসআই আজাদ-এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ঘটনার বিষয়ে তদন্ত চলছে। ওসি স্যার বিষয়টি দেখছেন। আমি ওনার নির্দেশক্রমে দায়িত্ব পালন করছি। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত উক্ত ঘটনায় এখনো কোন মামলা হয়নি বলে জানা গেছে।