মিঠাপুকুরে ত্রানের প্রলোভন দেখিয়ে নেয়া টাকা কুচক্রীদের নিকট থেকে উদ্ধার করে ইউএনও-র কাছে হস্তান্তর

আমিরুল কবির সুজন, মিঠাপুকুর (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার ১৬নং মির্জাপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে ত্রান দেয়ার নামে নেয়া টাকা উদ্ধার করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। ৭ মে বৃহষ্পতিবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে ওই টাকা হস্তান্তর করেন মিঠাপুকুর মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম নওশাদ। ভোক্তভোগী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা কতিপয় গ্রাম্য টাউট ত্রান দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ইউপি সদস্য ছাত্তার মিয়ার কথা বলে হত দরিদ্র ৬০জন মানুষের কাছ থেকে ২৮হাজার ৫শত ৫০টাকা আদায় করে।
বিষয়টি জানাজানি হলে মিঠাপুকুর মানবাধিকার কমিশনের একটি টীম বুধবার ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুক্তভোগীদের সাথে কথা বলে ঘটনার সত্যতা পান। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মুঠোফোনে জানালে তিনি ভুক্তভোগীদের তালিকা করে তাদের কাছ থেকে নেয়া টাকা ফেরত নেওয়ার নির্দেশ দেন। বুধবার বিকেলে মিঠাপুকুর মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম নওশাদ ইসমাইলপুর গ্রামে ওই টাকা কুচক্রীদের কাছ থেকে স্থানীয় ইউপি সদস্য ছাত্তার মিয়ার মাধ্যমে উদ্ধার করে বৃহষ্পতিবার উদ্ধারকৃত টাকাগুলো মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট তাঁর কার্যালয়ে হস্তান্তর করেন। ইউপি সদস্য ছাত্তার মিয়া জানান, ঘটনা নিয়া তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে।
ত্রানের নামে টাকা নেয়ার বিষয়টি তিনি আগে জানতেন না। পরে জানার পর টাকা উদ্ধারের ব্যাপারে তিনি মিঠাপুকুর মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম নওশাদকে সহযোগীতা করেন। মিঠাপুকুর মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম নওশাদ জানান, ত্রানের নামে হত দরিদ্র মানুষের কাছ থেকে টাকা নেয়ার বিষয়টি অমানবিক ও গর্হিত অপরাধ। তিনি এঘটনার দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবী করেছেন। মিঠাপুকুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন ভুঁইয়া বলেন, উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সহিত আলোচনা সাপেক্ষে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।