মাত্র ১২ ঘন্টায় গৃহবধূর গলাকাটার রহস্য উন্মোচন শাহরাস্তি থানা পুলিশ

মোহাম্মদ বিপ্লব সরকার, চাঁদপুর প্রতিনিধি: শাহরাস্তি উপজেলার উপজেলার রায়শ্রী দক্ষিণ ইউনিয়নের কুরকামতা গ্রামে ব্লেড দিয়ে গৃহবধুর গলা কেটে হত্যা চেষ্টার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। ঘটনার ১২ ঘন্টার মধ্যেই গৃহবধু নিজের অপকর্মের কথা জানালেন পুলিশি জেরার মুখে। তার দেয়া তথ্যমতে গলাকাটায় ব্যবহৃত বটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, ঘটনার দিন ওই গ্রামের বেপারী বাড়ির রাহাতের স্ত্রী শাহীনকে (২৫) অজ্ঞাত দুই দুর্বৃত্ত বসত ঘরের পেছনের দরজা দিয়ে প্রবেশ করে হাত-মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। এক পর্যায়ে ওই গৃহবধু চিৎকার দিতে গেলে তারা ব্লেড ভেঙ্গে ওই গৃহবধুর মুখের ভেতর ঢুকিয়ে স্কচটেপ এঁটে দেয় এবং ব্লেড দিয়ে তার গলা কেটে ফেলে। সকাল ৯ টার সময় ওই গৃহবধুর শাশুড়ি ছকিনা বেগম তাকে ডাকতে গেলে পুত্রবধুর গলা কাটা দেখে চিৎকার দেন। এসময় আশপাশের লোকজন ছুটে এসে ভিকটিমকে হাসপাতালে পাঠায়।

ঘটনার সাথে সাথে পুলিশের একটি টীম হাসপাতালে ওই গৃহবধুকে দেখতে আসে। সেখানে গৃহবধুর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মুখে স্কচটেপ আঁটার কোন চিহ্ন দেখতে না পেয়ে এক্সরের মাধ্যমে গলার ভিতরের ব্লেড শনাক্ত করতে চেষ্টা করে। এক্সরেতে অস্বাভাবিক কিছু ধরা না পড়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

সাথে সাথেই হাজীগঞ্জ ও কচুয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোসেন ও শাহরাস্তি থানা অফিসার ইনচার্জ শাহ্ আলমের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। সেখানে ক্রাইম স্পট পরিদর্শনে ঘটনার সাথে গৃহবধুর বক্তব্যের মিল না পেয়ে বাড়ির লোকজনকে ব্যপক জিজ্ঞেসাবাদ করে। এক পর্যায়ে ভিকটিমের শ্বশুর ইউনুছ মিয়া ও শাশুড়ি ছকিনা বেগম জানায়, পারিবারিক কলহের কারণে বেশ কয়েকদিন ধরেই তাদের পুত্রবধু বলে সে অনেক ভুল করেছে, তাকে যেন ক্ষমা করে দেয় (ঘটনার তদন্তের স্বার্থে যা গতকালের সংবাদে প্রকাশ করা হয়নি)।

ইতোমধ্যে পুলিশের উপ পরিদর্শক আব্দুল আউয়াল কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জানায়, গৃহবধু আশংকামুক্ত হওয়ায় সে চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল হতে ছাড় নিয়েছে। বিকেলের মধ্যেই ওই গৃহবধু তার পিত্রালয় শাহরাস্তি পৌরসভার ছিখুটিয়া গ্রামে উঠে। পুলিশ সেখানে ঘটনার পুনঃ বিবরণ জানতে চাইলে গৃহবধু অসংলগ্ন কথা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে সে আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে এ কাজ করেছে বলে জানায়। এব্যপারে সে অনুতপ্ত ও ক্ষমা প্রার্থী বলেও জানায়।

শাহরাস্তি থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ্ আলম জানান, আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে ভিকটিম নিজেই তার গলায় বটি চালিয়েছে। প্রাথমিক ভাবেই বিষয়টি আত্মহত্যা চেষ্টা সন্দেহ হওয়ায় আমরা বিষয়টি চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান পিপিএম কে জানাই। তাঁর নির্দেশনা মোতাবেক পুলিশ ঘটনার রহস্য উন্মোচনে সক্ষম হয়।

হাজীগঞ্জ ও কচুয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোসেন জানান, মানসিক ভাবে হতাশা ও স্বামী পরিবারকে চাপে ফেলতে গৃহবধু এ কান্ড ঘটিয়েছে। যেহেতু সে হতাশাগ্রস্থ, উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে আইনী পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।