মহেশপুরে বাণিজ্যিক ভাবে ড্রাগন চাষে ঝুকছে কৃষকরা

মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল,মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি:ঝিনাইদহের মহেশপুরে ড্রাগনফল চাষে ঝুকছে কৃষকরা। একদিকে মানুষের পুষ্টির চাহিদা মিটছে অন্যদিকে কৃষকরা এই ফল বিক্রি করে অধিক মুনাফা অর্জন করছে তাই দিন দিন এই চাষে মানুষের আগ্রহ বাড়ছে।

মহেশপুর উপজেলার খালিশপুর বাজারের বিজিবি ব্যাটালিয়ন এর পাশে শাহী স্যানেটারির ব্যবসাহী ফারুক হোসেন জানান, তিনি ইউটিউবে এই ফলের পুষ্ঠি গুণ দেখে প্রথমে সখের বশে তার মামা মশিয়ার রহমান মাষ্টারের সাথে পরামর্শ করেন এই চাষ করার। পরে ঝিনাইদহ থেকে প্রথমে ২০শতাংশ জমির জন্য চারা ক্রয় করে তিনি চাষ শুরু করেন। তিনি জানান ২০শতাংশ জমিতে চারা লাগানোর দেড় বছরের মাথায় তিনি ফল পাওয়া শুরু করেন।

প্রথমে এই জমিতে তার ৩ লক্ষ টাকা খরচ হয় । কিন্তু প্রথম বছরেই তিনি ৩লক্ষ টাকার মত ফল বিক্রি করে। এবার তার বাগানে ২লক্ষ টাকারমত ফল বিক্রি হয়েগেছে। এখনও যে ফল আছে তাতে আরো দেড় লক্ষ টাকার মত বিক্রি হবে বলে তিনি জানান। এই ফল লাভ জনক হওয়ায় তিনি এবার ৭ বিঘা জমিতে চাষ করছেন।
মহেশপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী জানান, মহেশপুর উপজেলা ড্রাগন চাষের উপযুক্ত পরিবেশ এই ফল এপ্রিলের শেষ থেকে শুরু হয়ে ৮মাস পর্যন্ত হয়ে থাকে । গুটি হওয়ার ৪০দিনের মধ্যে এই ফল বিক্রি করা যায়। বর্তমানে মহেশপুর উপজেলায় ১০৫বিঘা জমিতে ড্রাগন চাষ হচ্ছে। আমি প্রতিনিয়ত কৃষকদের এই চাষ করতে উদ্বুদ্ধ করছি।

মহেশপুর হাসপাতালের ডাক্তার আকবার নেওয়াজ জানান, ড্রাগন ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এই ফলে কার্বোহাইটেড ,প্রোটিন, ভিটামিন সি , ক্যালসিয়াম ও এন্টি অকসিডেন্ট থাকে । যা ক্যানসার প্রতিরোধী ও মানুষের শরীরের দৈনিন্দিন ক্ষয় রোধ করে।