মদনে গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দাদের উচ্ছেদ নিয়ে তৈরি হয়েছে ধুম্রজাল

জাহাঙ্গীর আলম, নেত্রকোণা প্রতিনিধিঃ নেত্রকোণা জেলার মদন উপজেলায় বিনা নোটিশে গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দাদের জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়েছে অন্যদিকে প্রশাসন থেকে বলা হচ্ছে কাউকে উচ্ছেদ করা হয়নি এ নিয়ে তৈরি হয়েছে ধুম্রজাল। ঘটনাটি ঘটেছে নেত্রকোণার মদন উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রামে। বিনা নোটিশে ৬টি পরিবারের প্রায় ৩০জন মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছে এসব ভুক্তভোগী পরিবারের শিশু ও বয়স্করা। ভুক্তভোগীরা মাথাগুজার ঠাই পুনরায় ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর আবেদন করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২জুলাই) দুপুরে সরেজমিনে ভুক্তভোগী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সূত্রে জানা যায়, নেত্রকোণার মদন উপজেলার গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের স্থানীয় চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বার কাজল মড়ল এলাকার বিভিন্ন লোকজনকে গুচ্ছ গ্রামে ঘর দেয়ার কথা বলে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেয়। পরবর্তীতে স্থানীয় প্রভাবে বন্দোবস্তকৃত পরিবারের সদস্যদের বের করে তাদের লোকজনদের ঘরে থাকার সুযোগ করে দেন বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দা নাজমা, শাহিদা, কাসেম, মিন্টু, নান্টুসহ অসহায় পরিবারগুলো গৃহহারা হয়ে দিশেহারা পড়েছে। করোনা মহামারিতে কোনো উপায় পাচ্ছেন না। এমনিতেই নূন আনতে পান্তা ফুরায়। এখন গৃহহারা হলাম। আমাদের কোনো জমিজমা নেই। এখন কোথায় যাব। তারা বলেন, আমাদের কোনো নোটিশ না দিয়ে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়েছে। এখন আমাদের অবস্থা খুবই খারাপ। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনাহারে দিন কাটাচ্ছি। আমাদের কথা চিন্তা করে গুচ্ছ গ্রামের বসতঘরগুলো পুনরায় ফেরত দেয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি।

গোবিন্দশ্রী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একে,এম নুরুল ইসলাম ছদ্দু মিয়ার সাথে যোগাযোগের চেষ্ঠা করে হলে থাকে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম জানান, এই পরিবারগুলো বরাদ্দ নেয়ার পর থেকে কখনই ঘরে থাকে নাই, তালা মারা ছিল, যার ফলে তাদেরকে বাদ দিয়ে নতুন লোকদেরকে দেয়া হয়েছে, কাউকে উচ্ছেদ করা হয়নি।